অষ্টগ্রাম - মে ১২, ২০১৯

অষ্টগ্রামে মৎস্য অফিস চলছে একজন দিয়ে

কিশোরগঞ্জের হাওর অধ্যাষিত মৎস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত অষ্টগ্রাম উপজেলা মৎস্য অফিস চলছে একজন ক্ষেত্র সহকারি দিয়ে। ব্যহত হচ্ছে মৎস্য উন্নয়ন কমকার্ন্ড।

চরম হুমকির মূখে রয়েছে নদী জলাশয় এ উপজেলা ৮ হাজার ১৯৩ জন কার্ডধারী জেলে থাকলেও সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্জিত হচ্ছে বলে একাধিক জেলেরা জানান, এ উপজেলায় প্রচুর নদী ,নালা খাল বিল রয়েছে। হাওর অধ্যাষিত মৎস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত উপজেলার নদ নদীর মাছ দেশের ভিবিন্ন হাট-বাজার হয়ে রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশ বিদেশে রপ্তানী হয়ে থাকে। কিন্ত দীর্ঘদিন এই অফিসে লোকবল সংকটের কারনে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে জেলেদের উন্নয়ন কর্মকান্ড।

উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, এই অফিসে মৎস্য কর্মকর্তা সহ ৫জন থাকার কথা থাকলেও তার বিপরিতে রয়েছেন একজন ক্ষেত্র সহকারি দিয়ে চলছে অফিসের কার্যক্রম।

পাশ্ববর্তী উপজেলা বাজিতপুরের একজন মৎস্য কর্মকর্তা কে অতিরিক্ত দায়িত্ব দিয়ে চলছে দীঘদিন ধরে তবে অতিরিক্ত মৎস্য কর্মকতা কে অষ্টগ্রাম অফিসে অনেক দিন দেখেন না বলে একাধিক মাছচাষিরা
জানান।

ফলে হাওরের জেলে ও মৎস্যচাষিদের ভিবিন্ন সময় সরকারি সুযোগ হারাচ্ছেন বলে জেলে ও মৎস্যচাষিরা জানান জানা গেছে, তার মধ্যে আবার গুরুত্বপূর্ণ অফিস সহায়ক দীর্ঘদিন যাবত প্রেষণে থাকায় উপজেলা অফিসের কাজে ও বাধাঁগ্রস্ত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকতা মো তোফাজ উদ্দিন আহামেদ জানান, লোকবল সংকটের কারনে এই উপজেলা জেলেদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না তবে, মাছচাষিদের সমস্যা হচ্ছে ইতিমধ্যেই অধিদপ্তরে অনেকবার লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে তিনি আশাবাদি এই সমস্যার সমাধান অচিরেই হবে।


আরও পড়ুন