দেশের খবর - মে ২৫, ২০১৯

পাথরঘাটায় শাশুড়ির মাথা থেঁতলে দিল পুত্রবধূ

বরগুনার পাথরঘাটায় ছেলের সাবেক স্ত্রী ও সাবেক ইউপি সদস্য মহিউদ্দিন পান্নার মেয়ে
লায়লা আক্তার পাপড়ির ইটের আঘাতে রেনু বেগম (৫৫) নামে এক শাশুড়ির মাথা থেতলে
দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গছে। এঘটনার সাথে সাথে ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন পাথরঘাটা
থানার ওসি হানফি সকিদার।

শুক্রবার (২৪ মে) উপজলোর নাচনাপাড়া ইউনিয়নের বাশতলা গ্রামে এঘটনা ঘটে। আহত রেনু বেগম ওই গ্রামের আব্দুল খালেক খলিফার স্ত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শী কারিমা ও নুরজাহান বলেন, অনেক আগে থেকেই রেনু বেগম ছেলের সাবেক শ্বশুর সাবেক ইউপি সদস্য মহিউদ্দিন পান্না ও তার মেয়ে লায়লা আক্তরি পপি তাদের দলবল নিয়ে তাদরে ঘর দখল করে নামিয়ে দেয়।

পরে আজ সকালে বাড়ির সামনে এসে গেট খোলা দেখে রেনু বেগম ঘরে ঢুকতেই ভিতরে থাকা পাপরির ভাই আসিফ ও সাথে থাকা ৫ থেকে ৭জন লোক তার উপরে হামলা চালায়। এ হামলায় সে ঘর থেকে বের হলে বাহিরে থাকা তার ছেলের সাবেক স্ত্রী পপি ও তার মা পারুল ইট দিয়ে মাথা থেতলে দেয়। পরে পুলিশ এ খবর পেলে ঘটনাস্থলে এসে রেনু বেগমকে উদ্ধার করে পাথরঘাটা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফ প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

তারা আরো বলেন, এর আগে রেনু বেগমের ছেলে ও পাপড়ির সাবেক স্বামী নোমানকে মারধর করে মেরে ফেলারও চেষ্টা করে।

নোমানের সাবেক শ্বাশুরী পারুল বেগম বলেন, আমরা তাদের মারধর করিনি, উল্টো আমাদের মারধর করছে। আমার শরীরে বিভিন্ন স্থানে ফুলে উঠেছে। তবে রেনু বেগমের সাবেক পুত্রবধু লায়লা আক্তার পপি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেছেন।

পাথরঘাটা থানা ভারপ্রাপ্ত র্কমর্কতা (ওসি) মো. হানফি সকিদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলনে, ঘটনাস্থলে এসে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি।রেনু বেগমকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য পাঠান হয়েছে।তাদের দুই পক্ষের একটা ঘর নিয়ে বিরোধ আছে , সেই ঘরটি মুলত খালেক মিয়ার সেখানে পান্না মেম্বরের মেয়ে দখল করে আছেন। এখন যার ঘর সেই থাকবে।লিখিতি অভিযোগ পেলে আইনি ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরো জানান, এর আগেও পাথরঘাটা থানায় বাড়ি দখল ও মারধররে একটি মামলা করেছেন রেনু বেগম।সেই মামলায় পাপড়ির বাবা পান্না জেল হাজতে আছেন।


আরও পড়ুন