ডায়েরিয়া হতে পারে যেসব ভুলের কারণে

গরমে যেসব রোগ দেখা দিতে পারে ডায়েরিয়া সেগুলোর মধ্যে অন্যতম। ডায়েরিয়া মূলত পানিবাহিত ব্যাকটিরিয়া থেকে ছড়ায়। শরীরের পানি বেরিয়ে যায় বলে এই অসুখ খুবই দুর্বল করে তোলে। অনেক সময় স্যালাইন দেওয়ারও প্রয়োজন পড়ে। বিশেষ করে কাঠফাটা রোদে পানি পানের দিকে নজর না দিলে এই অসুখের শিকার হতে পারেন আপনিও। তবে এই অসুখ থেকে দূরে থাকতে কিছু নিয়ম মানতে হবে-

চিকিৎসকদের মতে, ডায়েরিয়া এড়ানোর উপায় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা। রান্নাঘর, খাওয়ার জায়গা পরিষ্কার রাখুন। বাসনকোসন ধোওয়ামাজার জন্য পরিষ্কার পানি ব্যবহার করুন। মুখ ধোওয়ার সময় ব্যবহার করুন পরিষ্কার ও বিশুদ্ধ পানি।

পরিষ্কার পানি পান করুন। রাস্তাঘাটের যেকোনো জায়গা থেকে পানি পান করবেন না। মিনারেল ওয়াটার বা ফোটানো পানি পান করুন। তবে ডায়েরিয়া আক্রান্ত অঞ্চলে বাস করলে আর একটু বেশি সচেতন হতে হবে।

চিকিৎসকদের মতে, ডায়েরিয়া আক্রমণ আপনার স্থানীয় এলাকায় হলে নিয়ম করে ট্যাঙ্ক পরিষ্কার করান। এছাড়াও কিছু সতর্কতা মেনে চলুন। যেমন, খাবার বেশিক্ষণ ফেলে রাখবেন না। গরম অবস্থাতেই খান। ঠান্ডা হয়ে গেলে আবার গরম করে তবেই খান। কারণ, খাবার ঠান্ডা হলে তাতেও কিছু ক্ষতিকর ব্যাকটিরিয়া বাসা বাঁধে। সেগুলোও ডায়েরিয়াকে ডেকে আনে।

রাস্তার খাবার যতটা পারেন এড়িয়ে চলুন। বিশেষ করে, ফুচকা, ঘুগনি, মোমো জাতীয় খাবার একেবারেই খাবেন না। মোট কথা, যেসব খাবারে টকপানি বা স্যুপের আকারে পানি সরাসরি পেটে যায়, তাদের এড়িয়ে চলুন। পানি ছাড়া রান্না হয় না। তাই অপরিষ্কার হোটেল বা রেস্তরাঁ থেকে খাবেন না। এড়াতে হবে স্ট্রিট ফুডও।

গরমে ফল খাওয়া ভালো। তাই বলে কাঠফাটা গরমে বেড়িয়েই রাস্তার পাশ থেকে কাটা ফল কিনে খাবেন না। আস্ত ফল কিনে ভালোকরে ধুয়ে খান।

শরবত, ঘোল, লেবুপানি এসব রাস্তার দোকান থেকে একদমই খাবেন না। বাড়িতে পরিষ্কার করে বানিয়ে খান। একান্তই বাইরে খেতে হলে খুব পরিষ্কার দোকান থেকে খান।

সবজি কিনে রান্না করার আগে বেশ কিছুক্ষণ গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর রান্না করুন। এতে শাক-সবজির গা থেকে রাসায়নিক, রং ও সারের ক্ষতিকর প্রভাব যেমন মুক্ত হয় কিছুটা, তেমনই সবজি ধোয়ার সময়ও পানির জীবাণুদের রুখে দেওয়া যায়।

গরমে যতটা সম্ভব সি-ফুড বা অল্প সেদ্ধ মাংস না খাওয়ার চেষ্টা করুন। এসব খাবার থেকে ডায়েরিয়ার জীবাণু ছড়ায়।

খাওয়ার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন। বাড়িতে কুকুর বা বিড়াল পুষে থাকলে তাকেও পরিচ্ছন্ন রাখুন।


আরও পড়ুন