আজ ড্র করলেই বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে বাংলাদেশ

বিশ্বকাপের প্রাক বাছাইয়ের পরের পর্বে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ। আর এই স্বপ্নটা বাস্তবে রূপ দেওয়ার উপলক্ষ এনে দিয়েছে লাওসের বিপক্ষে প্রথম লেগের ম্যাচ জেতায়। পরের পর্বে যেতে হলে লাওসের সঙ্গে আজ ড্র করলেই তা পরিণত হবে সম্ভবে। দু’দলের ম্যাচটি বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হবে সন্ধ্যা ৭ টায়। বাংলা টিভি সরাসরি ম্যাচটি দেখাবে।

অবশ্য এই ম্যাচকে ঘিরে লাল-সবুজ দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া ভিন্ন পরিকল্পনাই আঁটছেন। পরবর্তী পর্ব নিয়ে না ভেবে মঙ্গলবারের প্রাক বাছাই নিয়েই যত ভাবনা তার, ‘আমি ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করছি না। লাওস ম্যাচকে ঘিরেই আমাদের যত চিন্তা। দলের সবাই জানে এটা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। যদি বাছাই পর্বে যেতে না পারি তাহলে দুই থেকে তিন বছর ফিফা-এএফসি স্বীকৃত প্রতিযোগিতায় খেলতে পারবো না। সবাই এই ম্যাচকে ঘিরেই উজ্জীবিত। তাদেরকে নতুন করে প্রেরণা জোগানোর কিছু নেই।’

সাম্প্রতিক সময়ে লাওসের সঙ্গে তিনটি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। তাতে দুটিতে জয় ও একটিতে ড্র। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে অবশ্য লাওস এগিয়ে, ১৮৪তম। বাংলাদেশ আছে ১৮৮তম স্থানে।

এই র‌্যাংকিংয়ে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও প্রথম লেগে ভিয়েনতিয়েনে লাওসকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাস বেড়ে গেছে বাংলাদেশের। ফিরতি লেগে নিজেদের মাঠেই খেলা থাকায় বাংলাদেশ দল বাড়তি সুবিধা পাবে। তবে স্বাগতিকদের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া বেশ সতর্ক, ‘প্রথম ম্যাচটি আমাদের জন্য কঠিন ছিলো। বিশেষ করে প্রথমার্ধে। দ্বিতীয়ার্ধে খেলার ধারা বদলে যায়। আমরা কিছুটা ভালো খেলে ম্যাচ জিতে নিয়েছি। সুতরাং ঢাকার ম্যাচটিও সহজ হবে বলে মনে হয় না। তাই আমাদের সতর্ক হয়ে খেলতে হবে।’

তবে প্রাক বাছাই পর্বে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে গিয়ে একমাত্র বাংলাদেশ ছাড়া বাকি পাঁচটি দেশ হেরেছে। সেই উদাহরণ টেনে নিজেদের এগিয়ে রাখছেন মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়া, ‘দেখুন আমরা ছাড়া বাকি পাঁচটি অতিথি দল হেরেছে। সেক্ষেত্রে আমরা এগিয়ে আছি। এটা আমাদের অর্জন বলতে পারেন।’

অপর দিকে বাংলাদেশকে টপকে লাওসের বাছাই পর্বে যেতে হলে অন্তত ২-১ গোলে জিততে হবে। সেক্ষেত্রে অতিথি দলটি মরিয়া হয়ে খেলবে-এমন ধারণা বাংলাদেশ দলের অধিনায়কের, ‘তারা যেহেতু পিছিয়ে আছে। তাই আক্রমণ বাড়িয়ে খেলবে। সেক্ষেত্রে ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকে আমাদের সাবধানী ফুটবল খেলতে হবে।’

বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ৪০টি দল আট গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলবে। প্রতি গ্রুপে থাকবে পাঁচটি দল। রাউন্ড রবিন পদ্ধতিতে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ম্যাচে মুখোমুখি হবে দলগুলো। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং সেরা চার রানার্স-আপ বাছাই পর্বের পরবর্তী ধাপে খেলার সুযোগ পাবে।


আরও পড়ুন