কিশোরগঞ্জের খবর - জুন ১৪, ২০১৯

‘স্বর্ণলতা’ রঙ বদলে ‘কটিয়াদী এক্সপ্রেস’

চলন্ত বাসে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে বন্ধ হয়ে যাওয়া স্বর্ণলতা পরিবহনের নাম ও রং পরিবর্তন করে কটিয়াদী এক্সপ্রেস করা হচ্ছে। গাজীপুরের কাপাসিয়ার তরগাঁও এলাকার রূপনগর পালকি কমিউনিটি সেন্টারের পাশের একটি গ্যারেজে গত দুই সপ্তাহ ধরে রং পাল্টানোর এ কাজ চলছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বাসগুলো কটিয়াদী এক্সপ্রেস নামে ঢাকা-কটিয়াদী-পিরিজপুর সড়কে চলাচল করবে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

গ্যারেজ মালিক আব্দুল কাইয়ুম জানান, প্রায় ১৪ দিন আগে স্বর্ণলতা পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. পাভেল তাকে গাড়ির রং ও নাম পাল্টানোর কাজ দেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্বর্ণলতা পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. পাভেল বলেন, গাড়িতে ধর্ষণের ঘটনার পর প্রশাসন আমাদের পরিবহন সড়কে নামানো বন্ধ করে দেন। আমরা কটিয়াদী পরিবহনের সঙ্গে কথা বলে গাড়িগুলো সড়কে নামাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু কটিয়াদী পরিবহন কর্তৃপক্ষ রাজি না থাকায় ২০টি গাড়ি অলস ফেলে রেখেছি।

গত ৬ মে রাত ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জ-ভৈরব সড়কের গজারিয়া বিলপাড় এলাকায় স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে এক নার্সকে গণধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা ঘটে। নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়া (২৩) কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালের নার্স ছিলেন।

এ ঘটনায় পরপরই পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত বাসের চালক লালন মিয়া, হেলপার নূরুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে। তবে একমাস পেরিয়ে গেলেও ঘটনার সাথে জড়িত বোরহান এখনও অধরা রয়েছেন। এদিকে ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন অভিযুক্ত বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু, হেলপার লালন মিয়া এবং বাস কাউন্টারের রফিকুল ইসলাম রফিক।

ওই ঘটনার পর থেকে প্রশাসন স্বর্ণলতা পরিবহনের গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও এখন রং পরিবর্তন করে কটিয়াদী এক্সপ্রেস নামে বাস চালানোর উদ্যোগ নিয়েছে বাস মালিকরা।

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) সহকারী পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম সরকার জানান, স্বর্ণলতা পরিবহন ঢাকা-পিরিজপুর পর্যন্ত বাস চলাচলে রোড পারমিট ছিল না। এবার স্বর্ণলতা কটিয়াদী এক্সপ্রেস নামে চলাচল করতে চাইলে তা আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি ও বিআরটিএ’র অনুমোদন নিতে হবে। আঞ্চলিক পরিবহন কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক। তাই এই ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হলে জেলা প্রশাসকরে সাথে কথা বলে বিআরটিএ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে।


আরও পড়ুন