অষ্টগ্রাম - জুন ১৫, ২০১৯

অষ্টগ্রামে অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তার ব্লক সরে গিয়ে ঝুঁকির মুখে

হাওর উপজেলা অষ্টগ্রামে এলজিইডির নির্মাধীন প্রায় অর্ধশত কোটি টাকার বাঙ্গালপাড়া -ব্রাহ্মনবাড়িয়া রোডের সাইট ব্লক সরে যাওয়ার কারনে মারাত্মক ঝুকিতে রয়েছে রাস্তাটি। এলজিইডি এই রাস্তাটি মারাত্মক ক্ষতির সম্ভ্যবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।এবিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন নির্বিকার রয়েছেন বলে
এলাকাবাসি জানান।

অষ্টগ্রাম উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্রে জানাযায়, অষ্টগ্রাম উপজেলার বাংগাল পাড়া হয়ে ব্রাম্মন বাড়িয়ার চাতল পাড় পর্যন্ত সাড়ে ৭ কিলোমিটার রাস্তাটি নিমার্নে ব্যায় হচ্ছে ৪৬ কোটি টাকার এর মধ্যে রয়েছে ৪ টি ব্রিজও গত ১৭ সালে কাজ শুরু করে ১৮ সালে জুনে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও স্থানীয় এলজিইডির অফিসের গাফিলতি কারনে এখন পর্যন্ত এই রাস্তার কাজ শেষ না হওয়ায় সংশয় প্রকাশ করছে এলাকাবাসী। এক দিকে রাস্তার সাইডের ব্লক সরে যাওয়া অন্যদিকে রাস্তার তীরবর্তী নদী ভাঙ্গনের কারনে এমনিতে যতেষ্ট ঝুকিতে রয়েছে রাস্তাটি।

একাধিক এলাকাবাসির সাথে কথা বললে তারা জানান, এই রাস্তাটি হাওরবাসীর স্বপ্ন কিন্ত এলজিওডি উদাসিনতায় হাওরবাসির এ স্বপ্ন ভেঙ্গে যাচ্ছে, অষ্টগ্রামব্রাম্মন বাড়িয়ার যাওয়ার একমাত্র যোগাযোগের রাস্তাটি কাজ শেষ হওয়ার আগেই এমন অবস্থা কি আর বলার আছে ।

এলাকাবাসীদের স্থানীয় এলজিইডির অফিস নিয়ে বলে , আগে রাস্তার কাজ দেখার জন্য অষ্টগ্রাম অফিস
থেকে অফিসারেরা নিয়মিত আসত, এখন আর তাদের কাউকে দেখা যায় না। একটু বৃষ্টি হলে যে কোনো সময় রাস্তাটি ভেঙ্গে যাবে বলে অসংখ্য লোকের ভাষ্য।

বৃহঃস্পতিবার সরেজমিনে বাংগালপাড়া চাতল পাড় রাস্তা ঘুরে দেখা যায়, বাংগাল পাড়া – চাতলপাড়ে রাস্তাটি দিয়ে অটোবাইক, মোটরসাইকেল লোকজন চলাচল করছে, নাজিরপুরের পাশে বেশ কিছু সাইটের ব্লক উঠে রাস্তার পাশেই পড়ে আছে।বেশ কিছুক্ষন অপেক্ষা করে ঠিকাদারি প্রতিষ্টানে কোন লোক এবং স্থানীয় এলজিইডির অফিসের কাউকে পাওয়া যায়নি।

উপজেলা প্রকৌশলী মাহবুব মোর্শেদ কে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এমনটি হওয়ার কথা না ,আর আমি অষ্টগ্রামের বাহিরে থাকায় এখানে কি কাজ হচ্ছে আমি জানি না তবে আজই আমি ফিরছি সেখানে গিয়ে দেখছি ।

এব্যপারে এলজিইডির কিশোরগঞ্জের জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আশরাফ আলী খান বলেন,যেহেতু রাস্তাটি নতুন সেই ক্ষেত্রে অতিবর্ষনের কারনে এমনটি হতে পারে। রাস্তাটি এমন অবস্থা দেখার দায়িত্বে কারো আছে কিনা ? এমন প্রশ্নোওরে তিনি বলেন দায়িত্ব থেকে কেউ বাদ যাওয়ার সুযোগ নেই বিষয়টি জরুরি দেখছি ।


আরও পড়ুন