কিশোরগঞ্জের খবর - জুন ২৬, ২০১৯

কিশোরগঞ্জে ১০০ টাকায় পুলিশে চাকরি

কোনো ধরনের ঘুষ-দুর্নীতি ও তদবির ছাড়াই ১০০ টাকায় পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে মাঠে নেমেছেন কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার)।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়ার আগে ও পরে থেকে এ নিয়ে নানাভাবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

তার এই ঘোষণা জেলায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। কারণ তিনি শুধু ঘোষণা দিয়ে থেমে নেই। এ কার্যক্রম পুরোপুরি সফল করতে জেলার ১৩ থানায় মানুষকে জানান দিতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপকভাবে লিফলেট বিতরণ ও পোস্টারিং করা হচ্ছে। ঘুষ-দুর্নীতি মুক্ত এবং শতভাগ মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ দিতে পুলিশ সুপারের উদ্যোগে জেলাজুড়ে এ কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জে পুলিশ কনস্টেবল পদে ১৫৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এরমধ্যে ৯০ জন পুরুষ ও ৬৩ জন নারী এ পদে নিয়োগের সুযোগ পাবেন। আগামী ২৯ জুন কিশোরগঞ্জ পুলিশ লাইন্স মাঠে পুলিশ ‘ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল’ পদের প্রার্থীদের শারীরিক মাপ ও শারীরিক পরীক্ষা দিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হবে। ৩০ জুন লিখিত পরীক্ষা ও ৩ জুলাই লিখিত পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা এবং সেদিনই মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ৪ জুলাই মৌখিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

এদিকে পুলিশ সুপারের এমন উদ্যোগে সাধারণ মানুষের মনে আশার সঞ্চার হলেও বসে নেই দালালচক্র। তারা ভিন্ন কৌশলে মাঠে নেমেছে বলে শোনা যাচ্ছে। কারণ বিগত দিনে কিশোরগঞ্জে এ পদে নিয়োগ পেতে দালালদের মাধ্যমে ১২ থেকে ১৪ লাখ টাকা গুনতে হয়েছে বলেও জোর গুঞ্জন রয়েছে। আর সাধারণ মানুষের সেই ধারণা পাল্টে দিয়ে জেলার পুলিশ সুপার সরকার নির্ধারিত ফি ১০০ টাকায় পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ দিতে বদ্ধ পরিকর।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ কার্যক্রম সফল করতে চাকরিপ্রত্যাশী সাধারণ মানুষকে নানাভাবে সচেতন করা হচ্ছে। কারণ দালালচক্র চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নিতে নানা কৌশল অবলম্বন করবে বা করছে।

এ অবস্থায় পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা জারি করা হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে জেলার প্রতিটি উপজেলায় মাইকিং করে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করা হচ্ছে। মাইকিং-লিফলেটে প্রতারকদের কাছ থেকে সাবধান থাকতে বলা হচ্ছে।

পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠকে জানান, পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ পেতে সরকার নির্ধারিত ফি ১০০ টাকা ছাড়া বাড়তি একটি টাকাও লাগবে না। শুধু প্রয়োজন যোগ্যতা ও মেধার। আর কোনো চাকরিপ্রত্যাশী যেন প্রতারণার ফাঁদে না পড়ে সে জন্য শুরু থেকেই পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যোগ্যতা ও মেধার ভিত্তিতে কনস্টেবল পদে পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।


আরও পড়ুন