আইন আদালত - জুন ৩০, ২০১৯

রাজশাহীতে স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানির দায়ে শিক্ষকের কারাদন্ড

রাজশাহীর বাগমারায় ৫ম শ্রেনীর ছাত্রীকে (১০) যৌন হয়রানির অভিযোগে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বিপুল কুমারকে তিন মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। ওই শিক্ষক উপজেলার হলুদঘর গ্রামের হেমন্ত প্রামানিকের ছেলে।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিপুল কুমারের জঘন্যতম ঘটনাকে চাপা দেবার চেষ্টা করার জন্য অন্যান্য শিক্ষকদের অনত্রে বদলী ও বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের কার্যকরি কমিটি বেঙ্গে দেয়ার জন্য উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ্যক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম।

প্রতক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বিপুল কুমার প্রাং তার বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেনীর এক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানীর চেষ্টা করে। শিক্ষার্থী বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি তার পরিবারের সদস্যদের জানায়। পরিবারের সদস্যরা বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষক বিপুল কুমার প্রাং কে মারধর করে বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে আটকে রাখে। বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে এলাকার শত শত লোকজন ঘটনারস্থলে উপস্থিত হয়ে শিক্ষক বিপুল কুমারকে মারধরের চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বাগমারা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিপুল কুমারকে জনতার হাত থেকে উদ্ধার করার চেষ্টা করে।

প্রথম দফায় পুলিশ ব্যর্থ হয় এবং অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম দ্রুত ঘটনাস্থলে যান এবং ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা শিক্ষক বিপুল কুমার প্রাংকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান, বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকদের অন্যত্রে বদলী ও বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের কার্যকরি কমিটির পদ বিলুপ্ত ঘোষনা করেন।

ভ্রাম্যমান আদালতের এ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম জানান, শিক্ষক বিপুল কুমার প্রাং বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানীলর চেষ্টা করেন। তিনি নিজের দোষ স্বীকার করায় শিক্ষক বিপুর কুমারকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সাজাপ্রাপ্ত বিপুল কুমারকে পুলিশ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।


আরও পড়ুন