দেশের খবর - জুলাই ৬, ২০১৯

চাঁদাবাজদের ব্যবহৃত নৌকা পাটলাই নদীতে আটক করেছে পুলিশ

তাহিরপুরের পাটলাই নদীতে নৌকায় চাঁদাবাজি করার সময় পুলিশের উপস্থিতি পেয়ে চাঁদা আদায়ে ব্যবহৃত নৌকা ফেলে চাঁদাবাজরা ঘটনাস্থল হতে নৌকা ফেলে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

শনিবার সকাল ১১টায় উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের সুলেমানপুর বাজার সম্মূখ দিয়ে বয়ে যাওয়া পাটলাই নদীতে এ ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাস্থলে থাকা তাহিরপুর থানার এসআই হুমায়ুন কবীর ও এলাকাবাসী জানান,গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার সুলেমানপুর গ্রামের পাবেল, রুবেল, তালহা, হাবিব, লোহাচুরা গ্রামের মনছুর ও মাহতাবপুর গ্রামের হোসেন মিয়া সহ সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ দলটি কয়লা ও চুনাপাথার মালবাহী নৌকার মাঝিদের মারধর করে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করে আসছিল। এমন সংবাদের প্রেক্ষিতে তাহিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে চাঁদাবাজদের ধাওয়া করলে তারা নদীতে নৌকা ফেলে সাঁতড়ে ও দৌড়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

চাঁদা আদায়ে ব্যবহৃত ফেলে যাওয়া ইঞ্জিন চালিত নৌকাটি জব্দ করে তাহিরপুর থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তাহিরপুর থানার এসআই হুমায়ুন কবীর। চাঁদাবাজরা প্রতি মালবাহি স্টিলবডি নৌকা থেকে ২ হাজার টাকা এবং বাল্কহেড নৌকা থেকে ৫ হাজার করে চাদার টাকা আদায় করে আসছিল।

কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা থানার আল্লার দান নৌকার মাঝি হীরা মিয়া জানান,আমরা অনেক দিন ধরে পাটলই নদী দিয়ে কয়লা,চুনাপাথর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিবহন করে থাকি। পাঠলাই নদীতে কখনো কোন সময়ে কাউকে চাঁদা দেইনি। সম্প্রতি সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ দলটি আমাদের নৌকা থেকে চাঁদা তো জোড় করে আদায় করেই কোন কোন সময় চাঁদা দিতে না পারলে তারা আমাদের শারিরিকভাবে লাঞ্চিত করে এমনকি নৌকা থেকে তারা থালাবাসন পর্যন্ত নিয়ে যায়।

তাহিরপুর কয়লা আমদানী কারক সমিতির কোষাধক্ষ হাজি জাহের আলী বলেন,পাটলাই নদীতে নৌ চাঁদাবাজদের অত্যাচারে ব্যবসায়ীরা কয়লা চুনাপাথর পরিবহনে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। এভাবে পুলিশের
অভিযান চলমান অব্যহত থাকলে চাঁদাবাজরা নিরুৎসাহিত হবে।


আরও পড়ুন