কিশোরগঞ্জে শিশু ধর্ষণের দায়ে ৪ জনের যাবজ্জীবন

কিশোরগঞ্জে শিশু অপহরণ ও ধর্ষণের দায়ে চারজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও একই মামলায় অপহরণের অভিযোগে আসামিদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বিকেলে কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক কিরণ শংকর হালদার এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- জেলার করিমগঞ্জ পৌরসভার আশুতিয়াপাড়া গ্রামের শহীদ মিয়ার ছেলে সুমন (২৪), কান্তু মিয়ার ছেলে ফারুক (২৬), কাশেমের ছেলে রুমন (২২) ও সোনা মিয়ার ছেলে হেলাল (২৮)।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১১ মে করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন মাকে দেখে বাবা ও চাচার সঙ্গে রিকশায় করে বাড়ি ফিরছিলেন ধর্ষণের শিকার ওই মেয়েটি (১১)। পথে করিমগঞ্জ উপজেলার রামনগর শাহআলী মাজার এলাকায় পৌঁছালে দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে আসামিরা তার আত্মীয়-স্বজনকে মারপিট করে অস্ত্রের মুখে মেয়েটিকে অপহরণ করে নিয়ে যান। শেষরাতের দিকে পালাক্রমে ধর্ষণের পর মেয়েটিকে রক্তাক্ত ও অচেতন অবস্থায় একটি ব্রিজের পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যান আসামিরা। পরে আহতাবস্থায় মেয়েটিকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ ২৫০-শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় পরদিন মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে চারজনের নামোল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামি করে করিমগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৩ নভেম্বর আদালতে অভিযোপত্র দাখিল করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন ট্রাইব্যুনাল-১ এর স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এম এ আফজল ও আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মোশারফ হোসেন প্রমুখ।


আরও পড়ুন