কিশোরগঞ্জ সদর - জুলাই ১৩, ২০১৯

কিশোরগঞ্জে বিজেআরআই তোষা পাট বিষয়ে কৃষক সমাবেশ

কিশোরগঞ্জে বিজেআরআই তোষা পাট ৮ (রবি-১) এর বিভিন্ন এগ্রোইকোলজিক্যাল জোনে এ্যাডাপটিভ ট্রায়াল- এর উপর মাঠ দিবস ও কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পাট গবেষণা আঞ্চলিক কেন্দ্র, কিশোরগঞ্জ- এর ব্যবস্থাপনায় কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নে বাংলাদেশ পাট গবেষণা
ইনস্টিটিউট কর্তৃক উদ্ভাবিত নতুন জাত বিজেআরআই তোষা পাট ৮ (রবি-১) এর বিভিন্ন এগ্রোইকোলজিক্যাল জোনে এ্যাডাপটিভ ট্রায়াল- এর উপর মাঠ দিবস/কৃষক সমাবেশ শনিবার অনুষ্ঠিত হয়।

মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কিশোরগঞ্জ উপ-পরিচালক মোঃ মতিউর রহমান। প্রধান আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের সম্মানিত মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জনাব ড. মোঃ আইয়ুব খান। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা দিলরুবা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট এর ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.মোঃ বাবুল হোসেন।

কৃষক সমাবেশে বক্তারা পাটের নুতন জাতের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং উক্ত জাতের পাট বীজ উৎপাদনের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। প্রধান আলোচক পাটের সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা রাখেন এবং সময় উপযোগী বিভিন্ন দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

তিনি বলেন যে, বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট জেনোম গবেষণার মাধ্যমে একটি নতুন জান উদ্ভাবন করেন। এই জাতটি অন্যান্য জাতের চেয়ে অধিক ফলনশীল (১৫-২৫%বেশি) এবং রোগ ও মাকড় প্রতিরোধী।

উক্ত জাতের উৎপাদন ক্ষমতা প্রায় প্রতি হেক্টরে ৩-৩.৫ টন। উক্ত জাতটি সম্প্রসারণ করা হলে পাটের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পাবে এবং কৃষক লাভবান হবে।

উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক কেন্দ্রের প্রধান ও ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জনাব ড.মোহাম্মদ আশরাফুল আলম। তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে এবং নতুন জাতের সফলতা কামনা করে অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন অত্র কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাশার। মাঠ দিবস শেষে অতিথিবৃন্দ কৃষকদের নিয়ে বিভিন্ন প্লট পরিদর্শন করেন।এ সময় কৃষক কৃষাণী ও গন্যমান্য লোকজন উপস্থিত ছিলেন।


আরও পড়ুন