রাজনীতি - জুলাই ১৩, ২০১৯

ধর্ষণ বন্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে জাতীয় সংলাপ দাবি বিএনপির

গুম, খুন, হত্যা ও ধর্ষণের মহামারি থেকে রক্ষা পেতে রাষ্ট্রপতিকে জাতীয় সংলাপের উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি।

শনিবার (১৩ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এ দাবি জানান।

‘গুম, হত্যা ধর্ষণের মহামারির কবলে বাংলাদেশ-আতঙ্কিত নাগরিক জীবন ও সরকারের ভূমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, রাষ্ট্রপতি যদিও আওয়ামী লীগের কিন্তু রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর তিনি দল নিরপেক্ষ। তিনি জাতীয় একটি সংলাপ আহ্বান করে যত দ্রুত সম্ভব গুম, খুন, হত্যা ও ধর্ষণের হাত থেকে রক্ষা পেতে একটি উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেন। আর এটি থেকে একেবারে রক্ষা পেতে হলে সবচেয়ে আগে যেটা প্রয়োজন সেটা হল জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা।

বিএনপির এ নীতিনির্ধারক বলেন, ‘গুম খুন, হত্যা, ধর্ষণের মহামারি থেকে রক্ষা পেতে অবশ্যই এ সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। কারণ এ সরকার অস্বাভাবিক সরকার। তারা অস্বাভাবিকভাবে দেশ পরিচালনা করছে। অস্বাভাবিক কিছু বেশি দিন টিকে থাকতে পারে না। অতএব এ অস্বাভাবিক সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করে গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হবে।

‘মানুষকে অবহেলা করে দেশ চালাই না’ সংসদে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আমি মিডিয়ার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে কয়েকটি প্রশ্ন রাখতে চাই, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২৯ ডিসেম্বর রাতে হয়ে গেছে যা ৩০ ডিসেম্বর হওয়ার কথা ছিল এটা কি আপনি অস্বীকার করতে পারবেন? অথচ সংবিধান আমাদের ভোট দেয়ার অধিকার দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘হাইকোর্ট থেকে কয়েকদিন আগে একটি মন্তব্য এসেছে- কিছু কিছু ডিসি-ওসি নিজেদের রাজা বাদশা মনে করে, এরা কারা? এরা সরকারের মদদপুষ্ট সুবিধাভোগী। তারা নিজেরা নিজেদেরকে রাজা বাদশা মনে করছে।’

দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চলছে মন্তব্য করে সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, ‘বিচারহীনতা সংস্কৃতির সবচেয়ে বড় উদাহরণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হাজী মোজাম্মেল হক মিন্টুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ শাহ, মো. নেছারুল হক, এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম প্রমুখ বক্তব্য দেন।



আরও পড়ুন