কিশোরগঞ্জের খবর - জুলাই ২১, ২০১৯

স্কুলছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের পর হত্যা, প্রেমিক গ্রেফতার

কিশোরগঞ্জে স্কুলছাত্রী স্মৃতি আক্তার রীমাকে ধর্ষণ ও হত্যা মামলার মূল আসামি ও ওই ছাত্রীর কথিত প্রেমিক পিয়াস মিয়াকে গ্রেফতার করেছে র্যাব।

শনিবার (২০ জুলাই) দিনগত রাতে চট্টগ্রামের পশ্চিম মাদারবাড়ি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার দুপুরে তাকে সাংবাদিকদের সামনে আনা হয়। গ্রেফতারকৃত পিয়াস পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী গ্রামের রুবেল মিয়ার ছেলে।

র্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লে. কমান্ডার এম শোভন খান জানান, চাঞ্চল্যকর এ ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনার পর থেকেই ছায়া তদন্তে নামে র্যাবের একটি চৌকস দল। পাওয়া তথ্য উপাত্তের মাধ্যমে ঘটনায় জড়িত আসামিদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চালানো হয়। এরই ধারবাহিকতায় শনিবার রাত ২টার দিকে অভিযান চালিয়ে ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী ও ধর্ষণের সঙ্গে সরাসরি জড়িত মামলার ২ নং আসামি পিয়াসকে আটক করা হয়। প্রাথমিকভাবে সে ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।

তিনি আরো জানান, রীমার সঙ্গে পিয়াসের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ঘটনার দিন রাতে দেখা করার কথা বলে ঘরের বাইরে যেতে রীমাকে কয়েকবার ফোন করে সে। রাতে রীমা টয়লেটে গেলে পিয়াস তাকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে। এক পর্যায়ে বাড়ির পেছনে পুকুর পাড়ে নিয়ে প্রথমে তাকে ধর্ষণ করে পিয়াস। পরে তার অপর তিন বন্ধুকে নিয়ে আবারও তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়।

মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ১৭ জুলাই রাতে পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী গ্রামে নানার বাড়িতে বেড়াতে গেলে ধর্ষণ ও হত্যার শিকার হয় রীমা। বৃহস্পতিবার সকালে নানা বাড়ির পেছনে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

রীমা হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে এবং হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী। ঘটনার পরেরদিন শুক্রবার নিহতের মা আঙ্গুরা খাতুন বাদী হয়ে চরফরাদী গ্রামের জাহিদ, পিয়াস, রুমান ও রাজু নামে চার যুবককে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।


আরও পড়ুন