দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত ঢাকায়

উত্তর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপ স্থল নিম্নচাপে রূপ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত নাগাদ ভারতের ঝাড়খন্ডে অবস্থান করছিল। এটি বুধবার বিকেল ৪টার দিকে ভারতের ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, বর্তমানে এটি ক্রমাগত দুর্বল হচ্ছে। শুক্রবার বিকেলের মধ্যে নিম্নচাপটি সুস্পষ্ট লঘুচাপে রূপ নিতে পারে। এর প্রভাবে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় বৃহস্পতিবার সারা দেশেই বৃষ্টি হয়েছে।

এদিন দেশের সর্বোচ্চ ১০২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে রাজধানীতে। শুক্রবার ঢাকাসহ সারা দেশে বৃষ্টির পরিমাণ কমার পূর্বাভাস দিয়েছে অধিদপ্তর।

বৃষ্টিতে রাজধানীতে জলাবদ্ধতা ও যানজট দেখা দেয়। ঈদে ঘরমুখো মানুষকে পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার আগের দিন এমন বৃষ্টিতে নগরবাসীর ভোগান্তি ছিল অনেক।

বাস, ট্রেন, লঞ্চ ছাড়তেও বিঘ্ন ঘটে বৃষ্টির কারণে।

অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, ‘নিম্নচাপের প্রভাবে মূলত সারা দেশেই বৃষ্টির মাত্রা বেড়েছে। নিম্নচাপটি ক্রমান্বয়েই দুর্বল হচ্ছে। ধীরে ধীরে এটি এর সক্রিয়তা হারিয়ে ফেলবে। শুক্র ও শনিবার মোটামুটি বৃষ্টি কমবে। তবে তারপর থেকে আবার বৃষ্টি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

তিনি জানান, ঈদের দিন বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সারা দেশেই। তবে দিনের কখন হবে সেটা ঈদের দু-এক দিন আগে বলা যাবে।’


আরও পড়ুন