আন্তর্জাতিক - আগস্ট ১৭, ২০১৯

এবার ইসরায়েলের প্রস্তাব ফেরালেন রাশিদা তালেব

ইসরায়েলে সফরের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস সদস্য রাশিদা তালেব। বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা যায়, তাকে ‘মানবিক’ দিক বিবেচনা করে সফরের অনুমতি দেয় দেশটি।

জানা গেছে, ইসরায়েল অধিকৃত পশ্চিম তীরের বসবাস করেন রাশিদার দাদি। সে প্রেক্ষিতে মানবিক বিবেচনায় নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

রাশিদা জানান, ইসরায়েলের চাপিয়ে দেওয়া এই ‘দমনমূলক শর্তে’ তিনি রাজি নন।

ফিলিস্তিনি ইস্যুতে ইসরায়েলের কড়া সমালোচক এই ডেমোক্রেটিক পার্টির সদস্য। সম্প্রতি তার ও অপর কংগ্রেস সদস্য ইলহান ওমরের এক আনুষ্ঠানিক সফর বাতিল করে ইসরায়েল।

কিন্তু এর পর বলা হয় রাশিদা ব্যক্তিগত সফরে দেশটিতে যেতে পারেন। শর্ত দেওয়া হয়- ইসরায়েলে থাকাকালে দেশটিকে বয়কটের প্রচারণা চালাতে পারবেন না।

রোববার রাশিদা ও ইলহানের পশ্চিম তীর ও পশ্চিম জেরুজালেমে সফরের কথা ছিল। ওই সফর সূচিতে আরও ছিল আরব ও ইহুদি সংসদ সদস্য এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চাপের কারণে ইসরায়েল নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীন অঞ্চলে এই দুজনের সফর বাতিল করে। যদিও শুরুতে তাদের ভিসা দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে রাশিদা ও ইলহানের প্রবেশ নিষিদ্ধ করার বিষয়টি জানানো হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, যারা ইসরায়েলের ক্ষতি সাধন করতে চান তাদের ভ্রমণের অনুমতি দেওয়া অকল্পনীয়।

রাশিদা ও ইলহান ইসরায়েল বিরোধী সাপোর্ট ফর দ্য বয়কট, ডাইভেস্টমেন্ট, স্যাঙ্কশনস (বিডিএস) আন্দোলনের পক্ষে বরাবরই সোচ্চার।

আইন অনুসারে, বিডিএস সমর্থকদের ইসরায়েলে প্রবেশের ভিসা দিতে অস্বীকৃতি জানাতে পারে ইসরায়েল। বৃহস্পতিবারের সিদ্ধান্তকে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি অবজ্ঞা বলে উল্লেখ করেন ইলহান ওমর।

এদিকে কিছুদিন আগে রাশিদা ও ইলহানকে নিয়ে বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করে সমালোচিত হন ট্রাম্প।


আরও পড়ুন