অষ্টগ্রাম - আগস্ট ১৯, ২০১৯

অষ্টগ্রামে সওজের বক্স-কালভার্টের এপ্রোচ সড়কে ভাঙন

কিশোরগঞ্জ জেলার হাওর উপজেলা অষ্টগ্রাম-কাস্তুল রোডের একটি বক্স কালভার্টের দুই পাশের এপ্রোচ সড়কে ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার (১৬ আগস্ট) বিকাল থেকে এ ভাঙন চলছে। যে কারণে অষ্টগ্রাম থেকে কাস্তুল ইউনিয়নের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার পর থেকে ভাঙ্গন কবলিত কার্লভার্টের পাশের অষ্টগ্রাম বাজিতপুুরের রাস্তা ও
মসজিমজামসহ কয়েকটি গ্রামে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গত শনিবার কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সরকারদলীয় সাংসদ রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, উপজেলা চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম ও কিশোরগঞ্জ জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রাশেদুল আলম জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা আওয়মীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক হায়দরীসহ বিভিন্ন জনপ্রতিনিগন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অ্যাপ্রোচ সড়কটি সংস্কারের আশ্বাস দিয়েছেন।

অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম বলেন, কার্লভার্টটি এখন মরণফাঁদ। তিনি জানান, যে জায়গাটি ভেঙ্গেছে সেখান দিয়েই প্রচন্ড বেগে হাওরের পানি দক্ষিণ দিকে নামে। তাই এখানে কার্লভার্ট না করে বড় সেতু নির্মাণ করলে এমন হতো না। কার্লভার্টটি তৈরির সময় এসব বলা
হয়েছে, কিন্তু ওরা বোঝেনি।

এদিকে হাওরাঞ্চলবাসী ঢাকা কমিটির সাধারন সম্পাদক ও পরিবেশবাদী রোটারিয়ান কামরুল হাসান বাবু বলেন, আবুরা সড়ক নির্মানে ক্ষেত্রে হাওরের পানি প্রবাহ, প্রাকৃতিক পরিবেশ ও প্রতিবেশকথা ভাবা হয়নি,এবং সঠিক পরিকল্পনা ব্যাতিত কাজ শুরু করার ফলে হাওরের পানি প্রবাহ মারাত্বক বাধাগ্রস্থ হচ্ছে ।তিনি আরোও বলেন সমীক্ষার মাধ্যমে পরিকল্পনা গ্রহন না করা হলে হাওরের জনপথ মারাত্বক ক্ষতিগ্রস্থের সমৃখিন হতে হবে।

মসজিদ জামের হারুন মিয়া বলেন, পর্যাপ্ত পানি চলাচলের ব্যবস্থা না রেখে আবুরা সড়ক নির্মাণ
করা হচ্ছে। এ ধরণের ব্রিজ-কার্লভার্ট এত পানির চাপ সইতে পারে না। যে কারণে আমাদের গ্রামও হুমকিতে পড়েছে।

একাধিক এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বললে তারা বলেন, পানি নিষ্কাশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না রেখেই এখানে কেন কার্লভার্ট করা হলো? এ ধরণের কাজকে ‘অপরিকল্পিত’ বলেও আখ্যা দেন তারা।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের কিশোরগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী রাশেদুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি হাতে সময় কম থাকার অজুহাত দেখিয়ে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফারুক হোসেন জানান, আবুরা সড়কের অষ্টগ্রাম অংশে কয়েকটি ব্রিজ-কার্লভার্ট এখনো ওপেন করা হয়নি। যে কারণে সড়কের পূর্ব পাশের পানি পশ্চিম দিকে সরতে না পেরে কার্লভার্টের ওপর চাপ দেয়। এতে সেতুর দুদিকে ২০-২৫ মিটার অ্যাপ্রোচ সড়ক ভেঙে যায়।


আরও পড়ুন