কিশোরগঞ্জের ঈশাখাঁর জঙ্গলবাড়ী, এগারসিন্দুর দূর্গ ও চন্দ্রাবতী মন্দির পরিদর্শন করলেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

কিশোরগঞ্জের ঈশাখাঁর স্মৃতিবিজড়িত জঙ্গলবাড়ী এগারসিন্দুর দূর্গ ও চন্দ্রাবতী মন্দির পরিদর্শন করলেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব বিশিষ্ট প্রত্নতত্ত্ব বিদ মোঃ হান্নান মিয়া।

শনিবার সকালে কিশোরগঞ্জের সদর উপজেলার মাইজখাপন ইউনিয়নের কাচারীপাড়া গ্রামে অবস্থিত কবি চন্দ্রাবতীর স্মৃতি বিজড়িত বাড়ী ও মন্দির পরিদর্শন করেন। এই সময় তার সাথে ছিলেন এই সময় উপস্থিত ছিলেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রত্ন) মোঃ ছায়েকুজাম্মান, উপসহকারী প্রকৌশলী চৌধুরী জাকির হোসেন, অধিদপ্তরের সাইট পরিচারক মোঃ আমিনুল হক।

দুপুরে তিনি জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নে অবস্থিত মহাবীর ঈশাখাঁর স্মৃতি বিজড়িত বসত ভিটা ও জঙ্গলবাড়ী দূর্গ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি জঙ্গলবাড়ীর উন্নয়ন কার্যক্রম গ্রহণের বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন করিমগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) শামীমা ইয়াছমিন, ঈশাখাঁর ১৫তম অধস্থন পুরুষ জামাল দাদ খাঁন, দেওয়ান ফারুক দাদ খাঁন, মামুন দাদ খাঁনসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

পরে বিকেলে পাকুন্দিয়া উপজেলায় মহাবীর ঈশাখার স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক এগারসিন্দুর দূর্গ ও সম্রাট শাহজাহানের আমলের সাদী মসজিদ ও একই গ্রামে অবস্থিত শাহ মাহমুদের মসজিদের অপূর্ব সুন্দর বালাখানা, মুসলিম স্থাপত্যের পুরাকীর্তির নিদর্শন পরিদর্শন করেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মোঃ হান্নান মিয়া। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাহিদ হাসান, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রত্ন) মোঃ ছায়েকুজাম্মান, সহকারী স্থপতি খন্দকার মাহফুজ আলম, উপ-সহকারী প্রকৌশলী আঃ রাজ্জাক জমাদার। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, অধিদপ্তরের সাইট পরিচারক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, মোঃ আমিনুল হক সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

মহাবীর ঈশাখাঁর স্মৃতি বিজড়িত এগারসিন্দুর দূর্গ ও শাহ গরিবুল্লাহর মাজার এলাকা দ্রুত খনন করে জনসম্মুখে ইতিহাস জানার বিষয়টি উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। সংরক্ষিত পুরাকীর্তি সম্রাট শাহজাহানের আমলের সাদী মসজিদ ও একই গ্রামে অবস্থিত শাহ মাহমুদের মসজিদেরও সংস্কার করার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।


আরও পড়ুন