প্রতিমন্ত্রী জামাইকে বরণের অপেক্ষায় কিশোরগঞ্জ

মন্ত্রী শূন্য কিশোরগঞ্জে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনকে বরণের অপেক্ষায় জেলাবাসী।

জানা গেছে, তিন দিনের সফরে আজ বিকেলে কিশোরগঞ্জে আসবেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ
হোসেন এমপি। তাঁর আগমনকে কেন্দ্র করে জেলায় বিরাজ করছে আনন্দঘনপরিবেশ।

শুধু সরকারের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নন, তার বড় পরিচয় তিনি কিশোরগঞ্জের সৈয়দ পরিবারের জামাই।মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের কনিষ্ঠ সহোদর, কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রয়াত সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়ার জামাতা অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল। মেহেরপুরের প্রথিতযশা রাজনীতিক, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর মরহুম ছহিউদ্দিন আহমেদের ছেলে ফরহাদ হোসেন দোদুলের সঙ্গে সাবেক এলজিআরডি ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী প্রয়াত আশরাফুল ইসলামের চাচাতো বোন সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলার বিয়ে হয় গত ২০০৩ সালে।

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে কিশোরগঞ্জে এটাই ফরহাদ হোসেনের প্রথম আগমন। এ কারণে কিশোরগঞ্জের জামাইকে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মাধ্যমে বরণ করার প্রস্তুতি চলছে কিশোরগঞ্জে। শুধু দলীয় নেতাকর্মীরাই নন, জেলার ঐতিহ্যবাহী সৈয়দ পরিবারের ভক্ত সাধারণ মানুষও খুশিতে আতহারা।


কিশোরগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত গুণীজন সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে শুক্রবার সকাল সাড়ে দশটায় জেলা পর্যায়ের সুশীল সমাজ, কালেক্টরেট এর কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে মতবিণিময়সভাসহ কয়েকটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেওয়ার জন্য জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে সস্ত্রীক কিশোরগঞ্জে আগমন করবেন।

তাঁর এ আগমনে জেলা শহরে প্রবেশের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্ত এলাকা বিন্নাটির মোড়ে দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনসাধারণের উদ্যোগে জামাই বরণের সাজসাজ উৎসব বিরাজ করছে। সেখানে কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলাসহ বিভিন্ন লোকজ আয়োজন প্রদর্শিত হবে। বর-বধূকে গাড়ি থেকে নামিয়ে সুসজ্জিত ঘোড়ার গাড়ির মাধ্যমে শহরে নিয়ে আসা হবে। এ ছাড়া অর্ধশতাধিক
খাসি ও গরু জবাই করে গণভোজের আয়োজন রাখা হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি, সার্কিট হাউস ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়কে সাজানো হয়েছে বর্ণাঢ্য রূপে। প্রতিমন্ত্রীর বিশাল ছবি সংবলিত রঙ-বেরঙের ব্যানার আর ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে পুরো কিশোরগঞ্জ। প্রতিমন্ত্রীর আগমন-পথে নির্মাণ করা হয়েছে অর্ধশতাধিক সুবিশাল তোরণ।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু বলেন, ছোট
বোন ও বোন জামাইকে বরণের জন্য আমরা পারিবারিকভাবেও ব্যাপক প্রস্তত নিয়েছি। কিশোরগঞ্জে অবস্থানকালে প্রতিমন্ত্রী আমার বাসাতেই রাতযাপন করবেন।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, প্রতিমন্ত্রী কিশোরগঞ্জে কয়েকটি কর্মসূচিতে অংশ নেবেন। তিনি তিন দিন কিশোরগঞ্জে অবস্থান করবেন। তার আগমনকে কেন্দ্র করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রস্ততি নেওয়া হয়েছে।

সাধারণ মানুষের গুঞ্জন ও অনেকের ফেসবুকের অভিব্যক্তিতে গেছে “স্বাধীনতার পর আওয়ামীলীগ বিএনপি জাতীয় পার্টিসহ যেকোন দলেরই হোক না কেন কোন না কোন মন্ত্রী পেয়েছিলো কিশোরগঞ্জ। কিন্ত বর্তমান সরকারের আমলে এই প্রথম মন্ত্রী শুন্য হয় কিশোরগঞ্জ। তাই জেলাবাসী কিশোরগঞ্জের জামাই প্রতিমন্ত্রীকে পেয়ে আজ আনন্দে উল্লসিত”।


আরও পড়ুন