প্রচ্ছদ - রাজনীতি - সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যাকেই ধরবে তাকেই বহিষ্কার করব : যুবলীগ চেয়ারম্যান

যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী যুবলীগের নেতাকর্মীদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছেন, এখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অ্যাকটিভ। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যাকেই ধরবে তাকেই এক্সপেল্ড (বহিষ্কার) করবো। আমি নিজেও যদি এটার সঙ্গে জড়িত হয়ে থাকি তাহলে আমাকেও গ্রেফতার করা হোক। 

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর উত্তরায় আওয়ামী যুবলীগের একটি কর্মী সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘পত্র-পত্রিকা দেখছেন না? সমস্ত পত্রিকা এখন ক্যাসিনোতে ভরা। এই ক্যাসিনোর মালিকানা নাকি আমরা…. ‘খামোশ’… এটি মিথ্যা নয়। এই পত্রিকার ইনফর্মেশন যদি আমরা আগে পেতাম আমরা ব্যবস্থা নিতে পারতাম। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অ্যাক্টিভ যাকে ধরবে তাকেই এক্সপেল্ড করবো। তুমি যেই হও, রাজনীতি করার অধিকার থাকবে না।’

তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি অনুরোধ করে বলেন, ‘আমি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ জানাবো, এই অভিযোগ থেকে মুক্ত করুন। আমাদের যারা এই কাজ করে থাকে তাদের ধরুন। যত বড় নেতাই হোক, আমি করলে আমাকেও ধরুন’।

তিনি আরও বলেন, ‘স্মার্ট ভালো, ওভার স্মার্ট এর দরকার নেই। ওয়ার্কার হও, অভার ওয়ার্কর হইয়ো না; বেশি শিক্ষিত দরকার নাই, পিএসডি এত তাত্ত্বিকের দরকার নাই। ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট একজন কাঠুরিয়া, ভারতের প্রেসিডেন্ট একজন চা বিক্রেতা। এত ফটর ফটর করো না, রাজনীতি সবার জন্য;  শিক্ষিত হয়ে শ্রেষ্ঠত্বের বড়াই যারা করে, সেই সবচেয়ে বড় শয়তা ’।

যুবলীগ করার প্রধান শর্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যুবলীগ করতে হলে ম্যানেজার হতে হবে। ম্যানেজার মানে কি? হাউ টু ম্যানেজ, হাউ টু এডজাস্ট। আপনি যদি ম্যানেজ করতে না পারেন আপনি সংসারেও সুখী হতে পারবে না, জীবনেও না’।

পৃথিবীর সব থেকে বড় মিথ্যা কোনটি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘পৃথিবীর সব থেকে বড় মিথ্যা হচ্ছে ‘আই লাভ ইউ’। কি তাই না? ক্লাস সিক্সে একবার বলছেন, টেনে আবার বলছেন, কলেজে বলছেন, ভার্সিটিতে বলছেন, কতোজনকে বলছেন! এর থেকে বড় মিথ্যা আর কি হতে পারে? আপনি ম্যানেজ করতে না পারলে প্রেম করবেন কিভাবে? এক জায়গায় কেউ বসে থাকে না, খালি ঘুঁরে, খালি ঘুঁরে!’

এ সময় যুবলীগ নেতাদের সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, ‘নেতা হইছো তাই না, পতন হইলে বউ ছাড়া কেউ থাকে না। এটা মাথায় রেখো। বউ খারাপ হলেও তার থেকে শ্রেষ্ঠ কেউ নাই। আমি কাউকে ক্যাডার রাজনীতি করতে দেবো না।’

এর আগে অস্ত্র, বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা ও ১৬৫ কোটি ৮০ লাখ টাকার এফডিআর সহ যুবলীগ নেতা জি কে শামীমকে আটক করে র‍্যাব। 

তার আগে, অবৈধ জুয়া ও ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া। অস্ত্র ও মাদকের পৃথক দুই মামলায় তাকে সাত দিনের রিমান্ডেও পেয়েছে পুলিশ।


আরও পড়ুন