ফেনী নদীর নাম ‘আবরার নদ’ করার দাবি বিএনপির

ছাত্রলীগ সদস্যদের হাতে বুয়েটছাত্র আবরার ফাহাদ নির্মমভাবে নিহত হওয়ার ঘটনায় ফেনী নদীর নাম ‘আবরার নদ’ করার দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষার যুদ্ধে, দেশের মাটি ও পানি রক্ষার যুদ্ধে আবরার ফাহাদ প্রথম শহীদ হয়েছেন। তাই তার নামে ফেনী নদীর নাম ‘আবরার নদ’ করার দাবি জানাচ্ছি।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানী নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন রিজভী।

ধারণা করা হচ্ছে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ফেনী নদীর পানিচুক্তি নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করে বুয়েট ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা।

রিজভী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ফেসবুকে দেশবিরোধী চুক্তির বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেওয়ার অপরাধে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা নির্মমভাবে খুন করেছে বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরারকে। এ হত্যার মাধ্যমে ছাত্রলীগ প্রমাণ করেছে যে, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের কেউ নিরাপদ নয়।

তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগের খুন, ধর্ষণ, সন্ত্রাসী কার্যক্রম, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাণিজ্য অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাত্রলীগের ক্যাডারদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে। ছাত্রলীগের অতীত ঐতিহ্যকে ম্লান করে দিয়ে এর ডাকনাম এখন হয়ে পড়েছে চাপাতিলীগ। ছাত্রলীগ নামক এই দানব জঙ্গি লীগকে নিষিদ্ধ ঘোষণা না করলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়ার পরিবেশ ফিরবে না।

বিএনপির এ নেতা বলেন, শহীদ আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় সোমবার রাতে চকবাজার থানায় যে মামলা হয়েছে সেখানে আসামি হিসেবে ১৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। রহস্যজনকভাবে ১৯ জনের মধ্যে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্তের নাম নেই।

রিজভী প্রশ্ন রেখে বলেন, শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর রুম তথা টর্চার সেলটি কার? তাকে বাঁচাতে বুয়েট প্রশাসন উঠেপড়ে লেগেছে। নির্লজ্জ বুয়েট প্রশাসন এই হত্যাকাণ্ডকে সামান্য অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু বলে বিবৃতি দিয়েছে। তারা খুনিদের আড়াল করতে সিসিটিভিতে ধারণকৃত ২০ মিনিটের ভিডিও এডিট করে মাত্র দেড় মিনিটের একটি ক্লিপ দিয়েছে আন্দোলনরত ছাত্রদের।

তিনি বলেন, আজ সারাদেশের সাধারণ ছাত্রসমাজ ফুঁসে উঠেছে। আবরারের খুনিদের বিচারের দাবিতে ছাত্রদের আন্দোলন এখন অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে। দেশের সাধারণ ছাত্রসমাজের প্রতি আমাদের উদাত্ত আহ্বান এই মৃত্যু উপত্যকাকে শান্তিময় করতে রাজপথে এখনই নেমে আসতে হবে।

রিজভী বলেন, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাব্বানী বলেছে- আবরার হত্যার দায় ছাত্রলীগের নয়। সেটা আমরাও বলি। প্রকৃত অর্থে এটার দায় তাদের, যারা ছাত্রলীগকে দানব বানিয়েছে।

বাস পোড়ানোর মিথ্যা অভিযোগে যদি বিএনপির সিনিয়র নেতাদের নামে মামলা হয় তবে আবরার হত্যার জন্য ক্ষমতাসীনদের শীর্ষ নেতাদের নামে মামলা হবে কিনা তা জাতি জানতে চায়, বলেন তিনি।

বিএনপির পক্ষ থেকে আমরা আবরার ফাহাদকে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনায় তীব্র নিন্দা, ধিক্কার ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং প্রকৃত হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি করছি।


আরও পড়ুন