পাকুন্দিয়া - অক্টোবর ৯, ২০১৯

পাকুন্দিয়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধে নিহত ১

কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া থানার সুখিয়া ইউনিয়নের ঠোটার জঙ্গল গ্রামের আঃ কাদিরের একমাত্র ছেলে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে মোখলেছুর রহমান(৩৫) নামের একজন নিহত হন। এক ভাই চার বোনের মাঝে মোখলেছুর রহমান ছিল ২য় সন্তান।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) সকালে সীমানা নির্ধারণ না করে ঘরের ফাউন্ডেশন দেয়া শুরু করেন পাশের
বাড়ির মৃত মতি মিয়ার মেয়ে সালমা। নিহত মোকলেছুর রহমান ঘর তৈরিতে বাধা দেয়ায় সালমার
চাচা এবং চাচাতো ভাই মিলে অতর্কিতভাবে মোখলেছুর রহমানের উপর ঝাপিয়ে পড়ে এবং মোখলেছুর রহমানসহ তার বাবা ও চাচাগণ গুরুতর আহত হন। গুরুতর অবস্থায় তাকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল নিয়ে আসলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন।

নিহতের বাবা আঃ কাদির এসে জিজ্ঞাস করেন কেন তার ছেলেকে মারপিট করতেছে তখন তারা ক্ষোব্ধ হয়ে তার উপরও ঝাপিয়ে পড়ে ফারুক (৩৫) পিতা আঃ হাই, আরিফ(২৫) পিতা আঃ হাই, শিমুল (২২) পিতা নূরুন্নবী, ফরিদ(৪৩) পিতা নবী হোসেন, বাবুল(৩৮) পিতা নবী
হোসেনসহ আরো লোকজন।

সালমা বেগম তার তার পৈত্রিক ভিটায় ঘর উঠানোকে কেন্দ্র করে তার চাচা ও চাচাতো ভাইদেরকে নিহতের পরিবারের দিকে উস্কিয়ে দিয়ে এই ঘটনা ঘটান।

আহত হয়েছে যারা- নিহতের বাবা আঃ কাদির (৬৫) পিতা মৃত আবুল হাসেম। তিনি এখন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। নিহতের ২য় চাচা আঃ হালিম (৫৫) পিতা মৃত আবুল হাসেম। তিনি এখন হোসেনপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। নিহতের ৩য় চাচা আঃ ছালাম উরফে জমশেদ (৫০)পিতা মৃত আবুল হাসেম। তিনি এখন কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন। নিহতের ৪র্থ চাচা মাহতাব উদ্দিন (৩৫)
পিতা মৃত আবুল হাসেম। তিনিও কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন। নিহতের চাচি জোসনা আক্তার(৩২) স্বামী সবুজ মিয়া তিনি গর্ভবতী হয়েও এই পাশন্ডদের হাত থেকে রক্ষা পাইনি। তিনিও আহত হয়ে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন।

পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফিজুর রহমান বলেন, জায়গার বিরোধ নিয়ে মোখলেছুর রহমান নিহত হন। মামলার প্রস্ততি নেয়া হচ্ছে। মামলা হলেই আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।


আরও পড়ুন