সুনামগঞ্জের ছাতকে দু-পক্ষের সংঘর্ষে আহত শতাধিক, ১৪৪ ধারা জারী

সুনামগঞ্জের ছাতক নিষিদ্ধ ঘোষিত তীর-শিলং খেলা ও মদ খাওয়াকে কেন্দ্র করে দু গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পথচারীসহ আহত শতাধিক লোক। এদের মধ্যে গুরুতর আহত ২০ জনকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করার খবর পাওয়া গেছে।

অন্যান্য আহতদের ছাতক, কৈতক হাসপাতাল সহ স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ সংঘর্ষের ঘটনায় অর্ধশতাধিক যানবাহন ও ২০-২৫ দোকান ভাংচুরের খবর পাওয়া গেছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে স্থানীয় গোবিন্দগঞ্জ এলাকার সাদা পুলের মুখ সংলগ্ন বাজারে তীর-শিলং খেলার সময় মদপানকে কেন্দ্র করে দিঘলী গ্রামের ফয়ছল ও শিবনগর গ্রামের সাজুর মধ্যে হাতা-হাতির ঘটনা ঘটে। এনিয়ে বুধবার সন্ধ্যায় স্থানীয় লোকজনের মধ্যস্থতায় এক শালিস বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বৈঠকে দুইপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরলে একপর্যায়ে দুপক্ষের লোকজন  সংঘর্ষে লিপ্তহয়। পরে দু-গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিলে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দু-পক্ষের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষ বাধে। এ সময় সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কের দু-পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে এবং যাত্রী ও পথচারীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। খবর পেয়ে ছাতক থানা পুলিশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম কবির, উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, সহকারী কমিশনার ভুমি তাপস শীলসহ স্থানীয় লোকজনের প্রচেষ্টায় দীর্ঘ দু ঘন্টা পর সংঘর্ষ থামে।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জানান সংঘর্ষ থামাতে পুলিশসহ স্থানীয় লোকজন আহত হয়েছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে এডিশনাল এসপি হায়াতুননবীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ অবস্থান করছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষথেকে ঘটনাস্থলের আশপাশ এলাকায় ১৪৪ ধারা জাড়ি করা হয়েছে


আরও পড়ুন