খেলার খবর - প্রচ্ছদ - নভেম্বর ১৪, ২০১৯

১৫০ রানে অলআউট বাংলাদেশ

একের পর উইকেট পতনে ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসে মোটামুটি সংগ্রহও দাঁড় করাতে পারল না বাংলাদেশ। গুরুত্বপূর্ণ দুই খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল ছাড়া দলটি যেন খেইহারা।

ইন্দোরের হল্কার ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ অলআউট হওয়ার আগে ৫৮.৩ ওভারে করে মাত্র ১৫০ রান। সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেছেন মুশফিকুর রহিম। অন্যদের মধ্যে অধিনায়ক মুমিনুল হক ৩৭ ও লিটন দাস ২১ ছাড়া কারোর রান উল্লেখযোগ্য নয়।

ভারতের বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ শামি তিনটি উইকেট নেন। দুটি করে উইকেট নেন ইশান্ত শর্মা, উমেশ যাদব ও রবীচন্দ্রন অশ্বিন।

অলআউটের দ্বারপ্রান্তে বাংলাদেশ

থিতু হওয়ার চেষ্টা করছিলেন সাত নম্বরে নামা লিটন দাস। কিন্তু তাকে ২১ রানের বেশি করতে দিলেন না ইশান্ত শর্মা। বল ব্যাটের কানায় লেগে ক্যাচ ওঠে যায় স্লিপে। তালুবন্দি করতে ভুল করেননি টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

লিটনের বিদায়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ১৪০। অল-আউট হওয়া দলটির জন্য সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন যারা আছেন তাদের সবাই বোলার।

জোড়া আঘাতে মুশফিক-মিরাজকে ফেরালেন শামি

মোহাম্মদ শামির পর পর দুই বলে উইকেট ছাড়া হলেন মুশফিকুর রহিম ও মেহেদি হাসান মিরাজ। তাতে ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসে অল-আউটে কাছে চলে এসেছে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ।

শামির করা ৫৪তম ওভারের পঞ্চম বলটি ছিল ইন-স্যুইঙ্গার। অনেকটা বাইরে পিচ করা বলটি কাট করতে চেয়েও পারলেন না মুশফিককে। সরাসরি বোল্ড হয়ে ফেরেন ১০৫ বলে চার চার ও এক ছক্কায় ৪৩ রান করা এই ব্যাটার। বাংলাদেশের রান তখন ৬ উইকেটে ১৪০।

মুশফিকের বিদায়ে ব্যাটিংয়ে আসেন মেহেদী হাসান মিরাজ। প্রথম বলেই এলবিডব্লিউ হয়ে সামির শিকারে পরিণত হন আট নম্বরে নামা এই ব্যাটসম্যান।

বাজে শটের মাশুল দিলেন মাহমুদউল্লাহ

রবীচন্দ্রন অশ্বিনের বলে বাজে এক শট খেলে ফিরলেন থিতু হওয়ার পথে থাকা মাহমুদউল্লাহ। ৩০ বলে ১০ রান করে যখন খোলস ভাঙার আভাস দিচ্ছিলেন তখনই থামতে হলো তাকে। অফ-স্টাম্পেরে বাইরে পা নিয়ে, স্টাম্প উন্মুক্ত করে খেলতে চাইলেন সুইপ। ব্যাটে-বলে এক হলো না। বল ব্যাটের নিচ দিয়ে গিয়ে লাগে স্টাম্পে। মাহমুদউল্লাহর আউটে বাংলাদেশ দলের রান দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ১১৫।

মুমিনুলের বিদায়ে বাংলাদেশ

অল্প রানেই তিন উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ শুরুতেই ধাক্কা খাওয়ার পর শক্তহাতে হাল ধরেছিলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে চতুর্থ উইকেটে গড়েন পঞ্চাশ রান ছাড়ানো জুটি। কিন্তু ব্যক্তিগত ইনিংস লম্বা করার আগেই ফিরতে হলো মুমিনুলকে। তার আউটে ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসে বড় বিপদে পড়ল অতিথি দল।

অশ্বিনের করা অষ্টাদশ ওভারের শেষ ডেলিভারিটি ব্যাটে-বলে এক করতে পারেননি মুমিনুল। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের ধারণা ছিল বল টার্ন করবে; কিন্তু করিনি। অফ-স্টাম্পে আঘাত হানে বল। প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় ৮০ বলে ছয় চারে ৩৭ রান করা মুমিনুলকে। বাংলাদেশের রান দাঁড়ায় ৪ উইকেটে ৯৯।

তিন উইকেট হারিয়ে লাঞ্চে বাংলাদেশ

দুই ওপেনার সহ গুরুত্বপূর্ণ তিনটি উইকেট হারিয়ে ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসের প্রথম সেশন শেষ করে লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশ। এই সময়ে দলটির সংগ্রহ ২৬ ওভারে ৩ উইকেটে ৬৩ রান।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে অধিনায়ক মুমিনুল হক ২২ ও মুশফিকুর রহিম ১৪ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন।

ইনিংসের শুরুতেই বড় ধাক্কা খায় টসে জেতা বাংলাদেশ। দলীয় ১২ রানে উইকেট ছাড়া হন দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস ও সাদমান ইসলাম। দলীয় ৩১ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় অতিথি দল। মোহাম্মদ শামির বলে এলবিডব্লিউ’র শিকার হন চারে নামা মোহাম্মদ মিঠুন।

ইমরুল-সাদমানের পথ ধরলেন মিঠুনও

দলীয় ১২ রানের মধ্যে দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও সাদমান ইসলামকে হারিয়ে বড় ধাক্কা খাওয়ার পর বিপর্যয় কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছিলেন মুমিনুল হক ও মোহাম্মদ মিঠুন। কিন্তু বেশি দূর যেতে পারল না এই জুটিও। দুই অঙ্ক স্পর্শ করতেই ফিরেছেন মিঠুন। তাতে ইন্দোর টেস্টে আরও চাপে পড়েছে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ।

দলীয় ৩১ রানে মোহাম্মদ শামিকে খেলতে গিয়ে এলবিডব্লিউ’র শিকার হন মিঠুন (১২)। উইকেট ছড়ার আগে তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক মুমিনুলের সঙ্গে ১৯ রানের জুটি গড়েন তিনি।

ইনিংসের শুরুতেই উইকেট ছাড়া হয় বাংলাদেশ দলের দুই ওপেনার। উমেশ যাদবের বলে থার্ড স্লিপে অজিঙ্কা রাহানকে ক্যাচ দেন ইমরুল। ইশান্ত শর্মার বলে উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান সাহার গ্লাভসবন্দি হন সাদমান।

শুরুতেই বিদায় ইমরুল-সাদমান

শুরু থেকেই ধুঁকছিলেন ইমরুল কায়েস। ফিরলেন খোলস ভেঙে বের হওয়ার আগেই। দুই অঙ্কও স্পর্শ করা হলো না তার। দলীয় ১২ রানেই ফিরতে হলো তাকে। উমেশ যাদবের ওভারের বলে খোঁচা মেরে  থার্ড স্লিপে অজিঙ্কা রাহাকে ক্যাচ দিয়ে বসেন ইমরুল (৬)।

দলীয় ১২ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ইশান্ত শর্মার করা পরের ওভারের শেষ বলে ফেরেন অপর ওপেনার সাদমান ইসলাম। স্যুইং করা বলটি ঠিকমতো খেলতে না পারায় উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান শাহার তালুবন্দি হতে হলো তাকে।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

ইন্দোর টেস্ট দিয়ে শুরু হয়ে গেল বাংলাদেশ ও ভারত মধ্যকার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। টস জিতে হল্কার ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগারদের অধিনায়ক মুমিনুল হক।

বাদ মোস্তাফিজ

ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে হুমকি হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অথচ একাদশেই ঠাঁই পাননি কাটারমাস্টার। তার জায়গায় টেস্ট একাদশে ডাক পেয়েছেন ডানহাতি পেসার এবাদত হোসেন।

তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে নিজেকে মোটেও মেলে ধরতে পারেননি মোস্তাফিজ। ম্যাচ তিনটিতে একটি উইকেটও পাননি তিনি। সেই ব্যর্থতাই টেস্ট একাদশ থেকে ছিটকে দিল বাঁহাতি পেসারকে।

একাদশে মিঠুন

ইন্দোর টেস্টের জন্য সাত ব্যাটসম্যান ও চার বোলার নিয়ে একাদশ সাজিয়েছে বাংলাদেশ। একাদশে জায়গা পেয়েছেন টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন। তিনে ব্যাটিং করতে নামবেন ডানহাতি এ ব্যাটার। আর ওপেনিংয়ে সাদমান ইসলামের সঙ্গে রয়েছেন অভিজ্ঞ ইমরুল কায়েস।

বোলিং আক্রমণে আছেন দুই পেসার ও দুই স্পিনার। পেস আক্রমণে ইবাদত হোসেনের সঙ্গে আছেন আবু জায়েদ। স্পিন আক্রমণে আছেন তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

বাংলাদেশ একাদশ: সাদমান ইসলাম, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী ও এবাদত হোসেন

ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা, মায়াঙ্ক আগারওয়াল, চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), আজিঙ্কা রাহানে, রবীন্দ্র জাদেজা, ঋদ্ধিমান সাহা (উইকেটরক্ষক), রবিচন্দ্রন অশ্বিন, ইশান্ত শর্মা, উমেশ যাদব, মোহাম্মদ শামি।

জেতার চাপ নেই বাংলাদেশের

প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ভারত। তার ওপর দলে নেই সেরা খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান ও তারকা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। তাই বাস্তবতা মেনে নিচ্ছেন সাকিব না থাকায় টেস্ট দলের নেতৃত্ব পাওয়া মুমিনুল হক। ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে জানালেন, জয় পাওয়ার মতো প্রত্যাশা নেই তার দলের।

“আমার কাছে মনে হয়েছে আমাদের কোনো চাপ নাই। কারণ আমাদের কোনো এক্সপেক্টেশন ওই রকম নেই। আপনারাও জানেন, আমরাও জানি, সবাই জানে। আমাদের ওইরকম প্রেশারও নেই যে আমাদের জিততে হবে। আমরা আমাদের ভালো ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব।”

বাংলাদেশকে কোহলির সমীহ

শক্তি-অভিজ্ঞতায় বাংলাদেশ থেকে ভারত যোজন যোজন এগিয়ে। এরপরও ইন্দোর টেস্টের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে প্রতিপক্ষটিকে সমীহ করেই কথা বললেন টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

“তারা (বাংলাদেশ) এরকম কন্ডিশনে খেলে অভ্যস্ত। তাই তারা জানে কীভাবে কী করতে হবে। আমাদের ফল বের করতে হলে ভালো খেলতে হবে। প্রতিটি টেস্টেই, যেমনটি আমরা অতীতে করেছি।”

“আমরা কোনোকিছুকেই হালকাভাবে নিচ্ছি না। বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যান বা বোলারকেই আমরা হালকাভাবে নিচ্ছি না। তারা যখন ভালো খেলে তখন অনেক স্কিলফুল দল হয়ে ওঠে। তাদের ভালো খেলার সামর্থ্য আছে। তাই আমাদের তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রাখতে হবে।”


আরও পড়ুন