কিশোরগঞ্জের ভাসমান সবজি চাষীর প্রদর্শনী এখন চোখের পানিতে ভাসছে

কিশোরগঞ্জের ভাসমান সবজি চাষীর প্রদর্শনী এখন চোখের পানিতে ভাসছে। সখের বশবর্তী হয়ে গেল কয়েক বছর যাবত কিশোরগঞ্জ জেলা সদরের মহিনন্দের কাশোরারচর বিলে কৃষি বিভাগের সহায়তায় ভাসমান শাকসবজি চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন কৃষক ফয়েজ উদ্দিন,নুরুল ইসলাম,হারিছ উল্লাহ,ফরহাদ। বুধবার রাতের আঁধারে কে বা কারা তাদের ২৪টি সবজি বেড কুপিয়ে প্রায় ২৫ হাজার টাকার সবজির ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

এ বিষয়ে জেলা সদরের মহিনন্দ ইউনিয়নের চংশোলাকিয়া গ্রামের বাসিন্দা ক্ষতিগ্রস্ত সবজি চাষী ফয়েজ উদ্দিন বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত চাষি ফয়েজ উদ্দিন বলেন,কৃষি অফিসের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় এ বছরে ২৪টি ভাসমান বেডে বিভিন্ন জাতের শীতকালীন শাক সবজি আবাদ করেছি। বৃহস্প্রতিবার সকালে সবজি উঠানোর জন্য গিয়ে দেখতে পাই রাতের আধারে কে বা কারা ভাসমান বেডের সবজিগুলোকে কুপিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলে এবং অনেব সবজি চুরি করে নিয়ে গেছে।

ভাসমান সবজি চাষী নুরুল ইসলাম, হারিছ উল্লাহ, ফরহাদ বলেন, ভাসমান বেডে সবজি আবাদ করে বিগত ৫ বছর যাবত আমরা জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। আমাদের সবজি বেডগুলো কুপিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত করায় আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। আমরা এ ঘটনার সাথে জড়িতদেরকে সনাক্ত করে দুষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কৃষি অফিসার মোঃ জামাল উদ্দিন ক্ষতিগ্রস্ত ভাসমান সবজি চাষাবাদের বেড পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান,ভাসমান সবজি চাষী ফয়েজ উদ্দিনসহ অন্যন্য কৃষকদের ক্ষতিগ্রস্ত সবজির বেড পরিদর্শন করে তাৎক্ষনিক সদর থানাকে বিষয়টি অবহিত করেছি। কৃষককে আইনগত সহায়তা দিয়েছি।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবু বকর ছিদ্দিক বিপিএম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


আরও পড়ুন