এসএসসি পরীক্ষার্থী ‘তৃষ্ণা’ মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান শিক্ষক গ্রেফতার

নীলফামারীর ডোমারে এসএসসি পরীক্ষার্থী তৃষ্ণা রানীর মৃত্যুর ঘটনায় ফের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীসহ এলাকাবাসী। মৃত্যুর পাঁচ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচী পালন করেন।

এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে ডোমার থানা পুলিশ। প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের বাগডোকরা গ্রামের মৃত ইউসুফ আলীর পুত্র।

আরও পড়ুন : প্রবেশ পত্র ভুল আসায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

রবিবার (৯ফেব্রুয়ারী) দুপুরে উপজেলা বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের মাহিগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে ডোমার চিলাহাটি সড়কে গাছের গুড়ি ফেলে ২ঘন্টা ব্যাপী অবরোধ ও বিক্ষোভ করে। এ সময় সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকায় চরম দূর্ভোগের শিকার হয় সাধারণ মানুষ। প্রধান শিক্ষকের অপসারণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন আন্দোলনকারীরা।

আরও পড়ুন : এসএসসি পরীক্ষার্থী মৃত্যুর ঘটনায় ডোমারে সড়ক অবরোধ, তদন্ত কমিটি গঠন

উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারী ওই বিদ্যলয়ের মেধাবী ছাত্রী এসএসসি পরীক্ষার্থী তৃষ্ণা রানী রায় (১৫) প্রবেশ পত্রে বানিজ্য বিভাগের জায়গায় মানবিক বিভাগ আসায় দুপুরে বিদায় অনুষ্ঠান শেষে বাড়ীতে এসে নিজ শয়ন ঘরে সবার অগোচড়ে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে। তৃষ্ণা রানী উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের বাগডোকরা দধীপাড়া গ্রামের দুলাল রায়ের মেয়ে।

আরও পড়ুন : ডোমারে এসএসসি পরিক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনার তদন্ত শুরু

এব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাকেরিনা বেগমের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে জানান, মাহিগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড হতে সাময়িক বরখাস্তের একটি চিঠি উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিনা শবনমের কাছে এসেছে বলে নিশ্চিত করেন।

ডোমার থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান জানান, এসএসসি পরীক্ষার্থী তৃষ্ণা রানীর আত্মহত্যার ঘটনায় মাহিগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলামকে গ্রেফতার করানো হয়েছে।


আরও পড়ুন