আন্তর্জাতিক - February 16, 2020

অনেক আগেই করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব সম্পর্কে জানতেন চীনা প্রেসিডেন্ট

ব্যাপক হারে  ছড়িয়ে পড়ার অনেক আগে থেকেই করোনাভাইরাসের ভয়াবহ প্রাদুর্ভাবের বিষয়টি জানতেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। দেশটির সরকারি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রেসিডেন্টের বিবৃতিতে এমনই ইঙ্গিত মিলেছে।

করোনার প্রাদুর্ভাবের প্রথম দিকে জিনপিং পুরোপুরি নীরব ভূমিকা পালন করেছেন। সম্প্রতি প্রেসিডেন্টের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। ৩ ফেব্রুয়ারি জিনপিংয়ের দেওয়া এক বক্তৃতা শনিবার সরকারি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে দেখা গেছে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ৭ জানুয়ারির আগেই নির্দেশনা দিয়েছিলেন জিনপিং। অথচ জানুয়ারির মাঝামাঝি বা শেষ দিকে চীনা কর্মকর্তারা ভাইরাসটির ব্যাপারে সতর্কতা জারি করেছিলেন।

৩ ফেব্রুয়ারি জিনপিং বলেছেন,‘মহামারি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় এবং প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ২২ জানুয়ারি আমি হুবেই প্রদেশকে ব্যাপক ও কঠোরভাবে লোক প্রবেশ বন্ধের সুস্পষ্ট অনুরোধ জানিয়েছিলাম।’

এর আগে ৭ জানুয়ারি জিনপিংয়ের নির্দেশনার কয়েক দিন পর উহানের আইন পরিষদ পিপল’স কংগ্রেসে বার্ষিক বৈঠকে বসেছিলেন কমিউনিস্ট পার্টির নেতারা। ওই সময়ের মধ্যেও উহানের স্বাস্থ্য কমিশন প্রতিদিনের স্বাস্থ্য বুলেটিনে জানিয়েছে নতুন করে কেউ ভাইরাস সংক্রমিত হচ্ছে না এবং মানুষ থেকে মানুষে ও চিকিৎসাকর্মীদের মধ্যে কোনো সংক্রমণের ঘটনা ঘটেনি। অথচ ৯ জানুয়ারি করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটে। ইতোমধ্যে উহান হাসপাতালের কিছু চিকিৎসক তাদের বন্ধুদের ভাইরাস সংক্রমণের বিষয়ে সতর্ক করেছিলেন এবং তারা ভাইরাস আক্রান্তের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে এমন রোগীদের জন্য পৃথক ওয়ার্ডের পরামর্শ দিয়েছিলেন।

শি জিনপিং এরপরও করোনাভাইরাসকে তার কর্মসূচিতে এজেন্ডা হিসেবে রাখেননি। জানুয়ারির শেষ দিকে বেইজিংয়ের গ্রেট হলে চীনা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে দেওয়া ভাষণে চীনের উন্নয়নে নিজের ভূমিকার প্রশস্তি গেয়েছেন; করোনাভাইরাসের কোনো উল্লেখই করেননি।


আরও পড়ুন