কুষ্টিয়ায় পুত্রবধূকে ধর্ষণের দায়ে শ্বশুরের যাবজ্জীবন

কুষ্টিয়ায় ভেড়ামারা থানার গৃহবধূকে ধর্ষণ মামলায় স্বামীর পালক পিতা বিপ্লব দাসকে (৪৫) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০হাজার টাকা জরিমানা আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সী মো: মশিয়ার রহমান জনাকীর্ণ আদালতে আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী ভেড়ামারা উপজেলার কারিকরপাড়া গ্রামের মৃত: মনোরঞ্জন দাসের ছেলে বিপ্লব দাস (৪৫)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ২১ মে, রাত ১১টায় ওই গৃহবধুর স্বামী কুমার বিশ্বাসের অবর্তমানে কুমার তার পালক পিতা বিপ্লব দাস ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এতে ওই গৃহবধু লোকলজ্জার ভয়ে ভীত হয়ে পড়ে। পরদিন (২২ মে) দুপুর ১২টায় আসামী বিপ্লব দাস গৃহবধূকে তার পিত্রালয় ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপায় পৌছে দেয়ার কথা বলে ঢাকার নবী নগর এলাকাস্থ আসামীর এক আত্মীয়র বাসাতে ১৫দিন আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

পরে সুযোগ বুঝে ওই গৃহবধু পালিয়ে এসে পরিবারের কাছে ঘটনা খুলে বলেন। এঘটনায় ভুক্তভোগী ওই গৃহবধুর মা ঝিনাইদহ জেলার বাসিন্দা বুলবুলি রানী বিশ্বাস আসামী বিপ্লব দাসের বিরুদ্ধে ভেড়ামারা থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ৭নভেম্বর আসামী বিপ্লব দাসের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০র দ:বি: ৯ (১) ধারায় অভিযোগ এনে আদালতে চার্জশীট দেয় পুলিশ।

কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌশুলী (পিপি) এ্যাড. আব্দুল হালিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভেড়ামারা থানার ওই গৃহবধূর করা ধর্ষণ মামলার একমাত্র আসামী বিপ্লব দাস প্রতারণা করে আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ছাড়াও ৫০হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর সাজার আদেশ দিয়েছেন।


আরও পড়ুন