মেসির চার গোলে এইবারকে উড়িয়ে দিল বার্সা

দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখালেন লিওলেন মেসি। একাই চারটি গোল করেছেন আর্জেন্টাইন এই ফরোয়ার্ড। তাতে লা লিগার ম্যাচে এইবারকে উড়িয়ে দিয়েছে বার্সেলোনা।

ক্যাম্প ন্যুতে শনিবার রাতে পয়েন্ট টেবিলের নিচের দিকে থাকা প্রতিপক্ষটিকে ৫-০ গোলে হারায় কিকে সেতিয়েনের দল। প্রথমার্ধে তিন গোল করা মেসি দ্বিতীয়ার্ধে করেন চতুর্থ গোল। অপর গোলটি আর্থারের।

নিজেদের মাঠে ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বল দখল ও আক্রমণে আধিপত্য দেখায় বার্সেলোনা। চতুর্থদশ মিনিটের অসাধারণ এক গোলে দলকে এগিয়ে নেন মেসি। ইভান রাকিতিচের পাসে ডি-বক্সের মাঝামাঝি থেকে বাঁ পায়ের শটে জালে বল জড়ান বার্সেলোনা অধিনায়ক।

৩৭তম মিনিটে আরও একটি অসাধারণ ফিনিশিংয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মেসি। এভার আর্টুরো ভিদালের পাসে বল পেয়ে এইবার-এর বেশ কয়েকজন ডিফেন্ডারকে পরাস্থ করে জাল খুঁজে নেন ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার।

এই গোলে রিয়াল মাদ্রিদের করিম বেনজেমাকে টপকে চলতি লা লিগায় সর্বোচ্চ গোলের তালিকায় শীর্ষে উঠে আসেন মেসি। বেনজেমার গোল ১৩টি, মেসির ১৪টি।

৪০তম মিনিটে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন বার্সেলোনার গোল মেশিন। এইবার ডিফেন্ডারদের ভুলে বলে গোলপোস্টের খুব কাছে বল পেয়ে যান মেসি। ভুল করেননি গোল করতে।

বিরতির ঠিক আগে আরও একটি গোল পেতে পারতো বার্সেলোনা। অঁতোয়ান গ্রিসমানের শটটি দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দেন অতিথি গোলরক্ষক মার্কো মিমিত্রোভিচ। ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বার্সেলোনা।

৬১তম মিনিটে একটি গোল শোধ করতে পারত এইবার। দলটির স্প্যানিশ লেফট-ব্যাক কতে ক্যারিশম্যাটিক ভঙ্গিমায় ঠেকিয়ে দেন বার্সেলোনা গোলরক্ষ মার্ক-আন্ড্রে স্টেগান। জার্মান এই গোলরক্ষক প্রথমে পায়ের আঙ্গুল দিয়ে বল থামান, এরপর বাইরের দিকে ঠেলে দেন।

চার মিনিট পর বার্সেলোনার জালে এইবার বল পাঠিয়েছিল বটে। কিন্তু এবার জেরার্দ পিকেকে ফাউল করায় গোলটি বাতিল হয়ে যায়। উল্টো হলুদ কার্ড দেখতে হয় অতিথি দলের আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার গঞ্জালো এসকালেন্তেকে।

৭৭তম মিনিটে বার্সেলোনা চতুর্থ গোলটি পেতে পারত। কিন্তু স্যামুয়েল উমতিতি জালে বল জড়িয়েছিলেন। কিন্তু অফ-সাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায় গোলটি। একই কারণে ৮১তম মিনিটে আর্টুরো ভিদালের গোলটিও বাতিল হয়।

বার্সেলোনার একের পর এক আক্রমণ সামাল দিতে গিয়ে শেষ দিকে খেই হারা হয়ে পড়ে এইবার। তিন মিনিটের ব্যবধানে আরও দুই গোল হজম করে দলটি।

৮৭তম মিনিটে খুব কাছে বল পেয়ে দল ও নিজের চতুর্থ গোল করেন মেসি। এই গোলের রেশ না কাটতেই প্রতিপক্ষের জালে শেষ পেরেক ঠুকেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার আর্থার।

এই জয়ে ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে টপকে শীর্ষে উঠে এসেছে বার্সেলোনা। ২৪ ম্যাচে রিয়ালের পয়েন্ট ৫৩।

শনিবার রাতেই জিনেদিন জিদানের দলের ম্যাচ রয়েছে লেভান্তের সঙ্গে। প্রতিপক্ষের মাঠে ম্যাচটিতে জয় পেলে বার্সেলোনাকে টপকে ফের শীর্ষে উঠে আসবে রিয়াল।


আরও পড়ুন