বিনোদন - February 27, 2020

সালমান ভক্তদের ওপর খেপেছেন ডন

প্রয়াত নায়ক সালমান শাহ হত্যা মামলার অন্যতম আসামি অভিনেতা আশরাফুল হক ডন। গত সোমবার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) দেওয়া প্রতিবেদনে জানানো হয়, সালমান শাহ খুন হননি। তার মৃত্যুর ঘটনাটি আত্মহত্যাজনিত। এমন রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এই খলঅভিনেতা। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ নিয়ে কথাও বলেছেন তিনি।

রায় প্রকাশের দিনই ডন বলেন, ‘আল্লাহ যা করেন ভালোর জন্যই করেন। অবশেষে কলিজার বন্ধুকে হত্যার মিথ্যে অভিযোগ থেকে মুক্ত হলাম। ২৪ বছর বুকের ভেতর বন্ধু হত্যার মিথ্যা অপবাদ নিয়ে আমাকে ঘুরতে হয়েছে। আমার যে ক্ষতি হয়েছে, তা কিছুতেই পূরণ হবে না। আমি ধৈর্য ধরে ছিলাম, মনে বিশ্বাস ছিল সত্য একদিন বেরিয়ে আসবেই। সত্য কোনোদিন মিথ্যা হয় না আর মিথ্যাকেও জোর করে সত্য বানানো যায় না।’

এই খলঅভিনেতা আরও বলেন, ‘সালমান শাহ আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু ছিল। এটা ইন্ডাস্ট্রির সবাই জানে। নায়ক-ভিলেন হিসেবেও পর্দায় আমাদের জুটি ছিল সবচেয়ে জনপ্রিয়। সালমান চলে যাওয়ার পর আমিও সিনেমায় নিয়মিত হতে পারিনি। তবুও আমার ওপর বন্ধু খুনের মিথ্যে দায় চাপানো হলো। দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে কত কষ্ট, জ্বালা-যন্ত্রণা আমি সয়েছি, তা কেবল আমিই জানি।’

তবে এই রায়ে সালমানের পরিবারের পাশাপাশি তরুণ প্রজন্মের অনেকেই নাখোশ। এ নিয়ে চলছে সমালোচনাও। রায় প্রকাশের পর ডনের প্রতিক্রিয়া খুব একটা ভালো ভাবে নেয়নি সালমান ভক্তরা। এ জন্য অনলাইন আক্রমণের শিকারও হতে হয়েছে এই অভিনেতাকে।

এ ব্যাপারে ডন বলেন, ‘আইনের প্রতি শ্রদ্ধা না জানিয়ে, সালমানের অনেক তরুণ ভক্ত এখনো উল্টাপাল্টা কথা বলছে। তারা এখনো বলছে, আমি দোষী। বিষয়টি খুব খারাপ লাগে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তরুণ ভক্তরা এই মামলা সম্পর্কে কী জানে? ১৯৯৬ সালে যখন সালমান শাহ আত্মহত্যা করেন। এখন যাদের বয়স ৩০ বছর, তখন তাদের বয়স ছয়-সাত বছর। ওই বয়সে একটা শিশু কি বোঝে? অথচ তারা এখন মহাজ্ঞানীর মতো রায় নিয়ে কথা বলছে। তারা এখনো বলছে, এটা আত্মহত্যা না। কোনো কিছু না জেনে, না বুঝে তারাই রায় দিয়ে দিচ্ছে।’


আরও পড়ুন