করোনার ‘ওষুধ আবিষ্কার’ করে যুবক জেলে

ময়মনসিংহের নান্দাইলে স্বপ্নে পাওয়া করোনাভাইরাসের ওষুধ আবিষ্কারের দাবিদার এক যুবককে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ২২ বছর বয়সী ওই যুবকের নাম শাহিন মিয়া।

একইসঙ্গে ওই ব্যক্তির সহকারী জসিম উদ্দিনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। দণ্ডপ্রাপ্তরা নান্দাইল উপজেলার চন্ডীপাশা ইউনিয়নের খামারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা।

জানা যায়, শাহিন ঢাকার যাত্রাবাড়িতে একটি চানাচুর কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন। সেখানে কাজ করার সময় স্বপ্নে করোনার ওষুধ বানানো দেখেন তিনি। পরে বাড়িতে গিয়ে ওষুধটি বানাতে সক্ষম হন বলে দাবি করেন তিনি। এ নিয়ে সরকারের সঙ্গে চুক্তি করার অপেক্ষায় রয়েছেন বলেও জানান তিনি। এমন কথা বলার পর থেকেই শাহিনের বাড়িতে লোকজন জড়ো হতে থাকেন।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার শাহিন গ্রামের মসজিদে জুমার নামাজের আগে করোনার ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করে বলেন, আমার আবিষ্কার করা ওষুধ মুসলিম ব্যতিত অন্য ধর্মের লোকজন খেলে মৃত্যু অবধারিত। তবে যদি সে মুসলিম হয়ে খায় তাহলে ভালো হয়ে যাবে।

গতকাল সন্ধ্যায় শাহীনের বাড়িতে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহিম। শাহীন তাদের কাছে ওষুধ আবিষ্কার ও মসজিদে গিয়ে তার আবিষ্কার করা ওষুধের ব্যাপারে মুসল্লিদের অবগত করার বিষয়টি স্বীকার করেন। পরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে ভ্রাম্যমাণ আদালত শাহীনকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়। এছাড়া তার সহযোগীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।


আরও পড়ুন