করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃত্যুর মিছিলে ২৭৩৬৫ জন

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে প্রাণ হারিয়েছেন আরো ৩ হাজার ২৯৭ জন। এ নিয়ে করোনাভাইরাসে বিশ্বে মৃত্যুর মিছিলে যুক্ত হলো মোট ২৭ হাজার ৩৬৫ জন।

এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বের ১৯৯টি দেশ ও অঞ্চলের ৫ লাখ ৯৭ হাজার ২৬২ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ হাজার ৪৮৬ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ১ লাখ ৩৩ হাজার ৩৬৩ জন সুস্থ হয়েছে বাড়ি ফিরেছেন।

এই প্রতিবেদনে বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুতে শীর্ষে থাকা ১০টি দেশের অবস্থান তুলে ধরা হলো:

সবেচেয়ে বেশি আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে

দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ১৫ হাজার ৫শ ৩৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। ফলে আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রই প্রথম দেশ যেখানে লাখ ছাড়িয়েছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

ওয়ার্ল্ডওমিটার এর সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে ইতোমধ্যেই করনায় মোট আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৪ হাজার ২০৫ জন। এছাড়া গত একদিনে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় ২৬২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭০১ জনে।

যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ২ হাজার ৪৬৫ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্তত ৯৬ হাজার। এদের মধ্যে ২ হাজার ৪৬৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ইতালিতে

দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯১৯ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে মরণঘাতি এ ভাইরাস। এটি এ পর্যন্ত একদিনে কোনও দেশে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

ইতালিতে এ নিয়ে মোট ৯ হাজার ১শ ৩৪ জনের মৃত্যু হল। করোনায় বিশ্বের কোনও দেশে এটিই সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা। এছাড়া সবশেষ নতুন করে প্রায় ৬ হাজার জনের আক্রান্তের ঘটনায় দেশটিতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৬ হাজার ৪ শ ৯৮ জন।

এছাড়া চিকিৎসায় সুস্থ হয়েছেন ১০ হাজার ৯৫০ এবং গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭৩২ জন। এ নিয়ে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ৬৬ হাজার ৪১৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

চীন

দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৫৪ জন। ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৮১৩৯৪য়ে।

চীনে আরও তিনজনের মৃত্যুর ফলে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৩২৯৫ হয়েছে। দেশটিতে করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৭৪৯৭১ জন এবং এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩১২৭ জন। এদের মধ্যে ৮৮৬ জনের অবস্থা গুরুতর।

স্পেন যেন মৃত্যুপুরী

করোনায় আক্রান্ত স্পেনের অবস্থা বুধবার থেকেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। দেশটিতে শুক্রবার ৭৭৩ জন মারা যাওয়ার পর করোনায় মোট ৫১৩৮ জন মারা গেলেন। আর মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৬৫ হাজার ৭১৯ জন।

জার্মানি

ইউরোপের এ দেশটিতে শুক্রবারও ৮৪ জন মারা গেছেন এবং নতুন করে ৬৯৩৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তবে শনিবার সকাল পর্যন্ত সেখানে নতুন মৃত বা আক্রান্তের কোনও খবর মিলেনি। দেশটিতে সবমিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ হাজার ৮৭১ জন এবং মোট মৃত্যু ৩৫১।

ফ্রান্স

ইউরোপের এই দেশটিতে মোট ৩২ হাজার ৯৬৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আর মারা গেছেন ১৯৯৫ জন। তবে সেরে উঠেছেন ৫৭০০ জন এবং এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরও ২৫২৬৯ জন। এদের মধ্যে ৩৭৮৭ জনের অবস্থঅ আশঙ্কাজনক।

ইরান

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে করোনায় সবচেয়ে বেশি নাজুক অবস্থা ইরানের। শুক্রবারও দেশটিতে নতুন করে ১৪৪ জন মারা গেছে। ফলে সেখানে মোট মৃত্যু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩৭৮য়ে। নতুন আক্রান্ত হয়েছে আরও ২৯২৬ জন। ফলে সেখানে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা ৩২ হাজার ৩৩২ জন।

ইরানের মোট ১১১৩৩ জন সেরে উঠেছেন। তবে এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরও ১৮ হাজার ৮২১ জন। এদের মধ্যে ২৮৯৩ জনের অবস্থা গুরুতর।

যুক্তরাজ্য

এই দেশে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ হাজার ৫৪৩ জন। এদের মধ্যে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও রয়েছেন। যুক্তরাজ্যে করোনায় মারা গেছে মোট ৭৫৯ জন।

সুইজারল্যান্ড

এখানে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ৯২৮ জন এবং মোট মৃত্যু হয়েছে ২৩১ জনের।

দক্ষিণ কোরিয়া

করোনায় শীর্ষ দশে থাকা এশিয়ার এই দেশটিতে শনিবার নতুন করে করোনায় আরও পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মোট মৃত্যু বেড়ে ১৪৪য়ে গিয়ে দাঁড়ালো। দেশটিতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে আরও ১৪৪ জন। ফলে মোট আক্রান্ত হলেন ৯৪৭৮ জন।

তবে দেশটিতে সুস্থ হয়ে ঘরে ফেরার লোকজনের সংখ্যাও কিন্তু কম না। শনিবার সকাল পর্যন্ত দেশটির মোট ৪৮১১ জন সুস্থ হয়েছেন। এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন প্রায় সমপরিমাণ মানুষ অর্থাৎ ৪৫২৩ জন। এদের মধ্যে ৬৯ জনের অবস্থা গুরুতর।


আরও পড়ুন