স্বাস্থ্য - April 2, 2020

সার্জিক্যাল মাস্কে ৭ দিন জীবিত থাকে করোনাভাইরাস

বিশ্বে মহামারি সৃষ্টিকারী কোভিড-১৯ রোগের ভাইরাস অর্থাৎ ‘সার্স-কোভ-২’ ভাইরাসটি সার্জিক্যাল ফেস মাস্কে ৭ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা।

নতুন করোনাভাইরাসটি সংক্রমণ শুরু করার পর থেকেই বিজ্ঞানীরা এটি নির্দিষ্ট পরিবেশে কোন বস্তুতে কত সময় জীবিত থাকতে পারে তা নিয়ে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

হংকংয়ের একদল গবেষক সার্জিক্যাল মাস্কের বাইরের দিকে সাতদিন পর্যন্ত জীবিত ভাইরাসের (কোভিড-১৯ রোগের) অস্তিত্ব পেয়েছেন। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক জানিয়েছেন, কার্ডবোর্ডের উপর এই ভাইরাসটি ২৪ ঘণ্টার বেশি বাঁচতে পারে না। এ কারণে তারা পোস্টাল সার্ভিসকে ঝুঁকিমুক্ত বলে নির্দেশ করেছেন।

সংবাদপত্রসহ প্রিন্টিং পেপারে ভাইরাসটি ৩ ঘণ্টার মধ্যেই মারা যায়। এছাড়া বিশেষজ্ঞদের দাবি, পরিবহনকৃত পণ্য থেকে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি খুবই কম।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ব্যবসায়িক পণ্যে কোনো আক্রান্ত ব্যক্তি দ্বারা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। এছাড়াও এমন কোনো প্যাকেট যা স্থানান্তরিত হয়েছে এবং খোলা হয়েছে- তার থেকেও কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি খুবই কম।

ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের অ্যালেক্স চিন ও তার সহকর্মীদের প্রাথমিক গবেষণায় উঠে এসেছে, ভাইরাসটি ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় দীর্ঘ সময়ের জন্য স্থায়ী হয়। যদি প্রতিরোধের ব্যবস্থা না করা হয় তবে সাধারণ ঘরের তাপমাত্রায় এটি প্রায় ৭ দিন পর্যন্ত পরিপূর্ণ শক্তিশালী থাকতে পারে। তবে সম্পূর্ণ নির্মূল হতে ১৪ দিন সময় লাগে। মানুষের শরীরের তাপমাত্রা অর্থাৎ ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এটি ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত জীবিত থাকতে পারে।

বিজ্ঞানীরা বলেন, ৫৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় আধা ঘন্টা এবং ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ৫ মিনিট ফুটালে কোনো সংক্রামক ভাইরাস জীবিত থাকতে পারে না। ৩ ঘণ্টা তাপ পেলে প্রিন্টিং কিংবা টিস্যু পেপারে কোনো ভাইরাস জীবিত থাকতে পারে না।

ভাইরোলজিস্ট জর্জ লমোনসফট বিবিসিকে বলেন, সংবাদপত্রের প্রিন্টিং এবং প্রোডাকশন প্রক্রিয়ায় ভাইরাসগুলো ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়, তাই এগুলোতে সংক্রমণের ঝুঁকি খুবই কম। তিনি বলেন, কাপড় এবং স্টেইনলেস স্টিল-এ যেকোনো ভাইরাস যথাক্রমে ২ দিন এবং ৭ দিন পর জীবিত থাকতে পারে না।

তবে ডিজইনফেকট্যান্ট ব্যবহার করলে যেকোনো ভাইরাস এসব বস্তু থেকে মাত্র ৫ মিনিট-এর মধ্যেই ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় বলে বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন।

যুক্তরাজ্যের স্বনামধন্য নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ রোগ সৃষ্টিকারী সার্স-কোভ-২ নামক ভাইরাসটি কপার কিংবা কার্ডবোর্ড এর চাইতে স্টেইনলেস স্টিল এবং প্লাস্টিক এর উপর দীর্ঘক্ষণ শক্তিশালী থাকে। এতে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত জীবিত ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

কপারের উপর ৪ ঘণ্টা পর কোভিড-১৯ রোগের ভাইরাস জীবিত পাওয়া যায়নি এবং কার্ডবোর্ডের উপর ২৪ ঘন্টা পর জীবিত ভাইরাসের অস্তিত্ব আবিষ্কৃত হয়নি।


আরও পড়ুন