করোনা : রাস্তায় ফেলে যাচ্ছে লাশ

ইকুয়েডরের গুয়াকিল শহরের জনশূন্য রাস্তায় চোখে পড়ছে ফেলে যাওয়া মৃতদেহ। করোনা মহামারী এতই খারাপ অবস্থায় পৌঁছেছে যে লাশ রাখারও পর্যাপ্ত জায়গা নেই।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, এই মহামারীর কারণে দেশটির জনবহুল শহরে সরকারি সেবায় ধস নেমেছে। রোগীদের রাখার জন্য হাসপাতালে পর্যাপ্ত বিছানা নেই। চাপ বাড়ছে মর্গ, গোরস্তান ও শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে।

অনিচ্ছা সত্ত্বেও বাধ্য হয়ে এই পরিস্থিতিতে অনেকে রাস্তায় প্রিয়জনের মৃতদেহ ফেলে রেখেছেন।

তবে কভিড-নাইনটিনে আক্রান্ত হয়ে গুয়াকিলে কতজন মারা গেছে তা স্পষ্ট নয়। অনেক পরিবার বলছে, তাদের প্রিয়জনের শরীরে এই ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখা গিয়েছিল। আর কেউ বলছেন, হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসার সুযোগ পাওয়া যায়নি।

৩০ মার্চ ধারণ করা রয়টার্সের একটি ভিডিওতে ফার্নান্ডো ইসপানা মানের এক বাসিন্দা অভিযোগ করেন, পাঁচদিন অপেক্ষা করেও তারা প্রয়োজনীয় সেবা পাননি। বারবার ৯১১ নম্বরে ফোন করে তারা ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। কল সেন্টার থেকে অপেক্ষা বললেও কেউ আসেনি। ওই সময় জানালা নিয়ে  ঘরে মধ্যে প্লাস্টিক মুড়িয়ে রাখা মৃতদেহ দেখা যায়।

সিএনএনের তোলা আরেক ভিডিওতে দেখা যায়, মটরসাইকেলে করে আসা কয়েকজন লোক রাস্তায় মৃতদেহ ফেলে রেখে যাচ্ছে। অপর এক ভিডিওতে দেখা যায়, লাশ ফেলে যাওয়ার পর কিছুক্ষণ পর হাজির হয় পুলিশ।

ইকুয়েডর কর্তৃপক্ষ বলছে, শহরটির বিভিন্ন বাড়ি থেকে ইতিমধ্যে ৩০০ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।

এ দিকে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত করোনা সংক্রমণে সারা বিশ্বের আক্রান্ত হয়েছেন ১০ লাখ ৩৯ হাজার ১৬৬ জন, মারা গেছেন ৫৫ হাজার ৯২ জন।


আরও পড়ুন