ডোমারে দুই গ্রামের ৩৫ বাড়ি লকডাউন

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের দুই গ্রামের ৩৫টি বাড়ী লকডাউন ঘোষনা করেছে উপজেলা প্রশাসন। ১৪ এপ্রিল রাত ১২টায় উপজেলার জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের বেতগাড়া ও হলহলিয়া গ্রামে উপস্থিত হয়ে ৩৫টি পরিবারকে ১৪ দিনের জন্য বাড়ীতে অবস্থান করার নির্দেশ প্রদান করেন উপজেলা নিবার্হী অফিসার শাহিনা শবনম।

এসময় ডোমার থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান,ওসি(তদন্ত) বিশ্বদেব রায়, ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ ইব্রাহীম উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা নিবার্হী অফিসার শাহিনা শবনম জানান,গত ৯ এপ্রিল ৩৫ জন শ্রমিক ট্রাক যোগে ঢাকা থেকে ডোমারে আসে। তাদের মধ্যে রাকিব নামে একজন নানী নুর বেওয়ার বাড়ী হলহলিয়া গ্রামের কলোনীপাড়ায় কয়েকদিন অবস্থান করেছিল। নানীর বাড়ীতে থাকা অবস্থায় জ্বর, সর্দি, কাশিতে আক্রান্ত হলে ১১ এপ্রিল নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালের ফু কর্নারে চিকিৎসার জন্য আসে। কর্তব্যরত চিকিৎসক করোনা সন্দেহে তাকে আইসোলেশনে নিয়ে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা টেষ্ট বিভাগে পাঠায়। ১৪ এপ্রিল তার রির্পোটে করোনা পজেটিভ আসে।যেহেতু রাকিবের সংস্পর্শে ৩৪ জন একই গাড়ীতে এসেছে। ও নানীর বাড়ীসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় চলাচলের কারনে ওই এলাকার দুটি গ্রামের ৩৫টি পরিবারকে ১৪ দিনের জন্য বাড়ীর বাইরে না যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রাকিবের বাড়ী জেলার সদরের টুপামারী ইউনিয়নের দোলুয়া দোগাছি ঠাকুরপাড়া গ্রামে। সে ওই ইউনিয়নের আলিব নুরের ছেলে ও  ইটভাটায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো।


আরও পড়ুন