২৭০ বছরের ইতিহাস ভেঙ্গে নীরব শোলাকিয়া

বহু বছর ধরে দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায়। ২৭০ বছরের ইতিহাসে কোনদিন কোন দুর্যোগে বন্ধ থাকেনি ঈদের জামাত। এমনকি ২০১৬ সালে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার পরও মুখরিত ছিল শোলাকিয়া। সেদিনও হয়েছে ঈদের জামাত। তবে এবার অদৃশ্য এক ভাইরাস পাল্টে দিয়েছে ইতিহাসের সব সমীকরণ। এ বছর ঐতিহাসিক শোলাকিয়ায় হয়নি ঈদের জামাত।

গত ১৪ মে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক শোলাকিয়ায় ঈদের জামাত আয়োজন করেনি ঈদগাহ পরিচালনা কমিটি। এর আগে প্রতি বছরই জামাতের এক মাস আগে থেকেই প্রস্তুতিমূলক সভা ও মাঠের সংস্কার কাজ হতো।

শোলাকিয়ায় ঈদের জামাত না হলেও জেলা শহরের শহীদী মসজিদে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন মসজিদের খতিব মাওলানা শামসুল ইসলাম। সকাল ৮টা, ৯টা ও ১০টায় মসজিদে অনুষ্ঠিত তিনটি জামাতে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, পৌর মেয়রসহ বিপুল সংখ্যক মুসল্লি সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অংশগ্রহণ করেন।

শোলাকিয়া ঈদগাহ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠকে জানান, ঈদের দিন শোলাকিয়ায় লাখো মুসল্লি নামাজ আদায় করেন। এখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করা কঠিন বিষয়। তাই মুসল্লিদের জীবনের ঝুঁকি ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে শোলাকিয়ায় জামাত বন্ধ রাখা হয়।

জানা গেছে, বারো ভূঁইয়াদের অন্যতম প্রতাপশালী বীর ঈশা খাঁর ১৬তম বংশধর দেওয়ান মান্নান দাঁদ খান ১৯৫০ সালে শোলাকিয়া ঈদগাহটি ওয়াকফ করেন। সে ওয়াকফ নামায় লিখা আছে, ১৭৫০ সাল থেকে এ মাঠে ঈদের জামাত হয়ে আসছে। সে হিসেব অনুযায়ী শোলাকিয়া মাঠের বর্তমান বয়স ২৭০ বছর। ১৮২৮ সালে ঈদুল ফিতরের বড় জামাতে এ মাঠে প্রথম ১ লাখ ২৫ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করেন। সেই থেকে এ মাঠের নাম হয় ‘সোয়ালাখিয়া’, যা এখন শোলাকিয়া নামে পরিচিত।


আরও পড়ুন