ফেসবুকের পর এবার ভুয়া খবর বন্ধ করবে টুইটার

ফেসবুকের পর এবার ভুয়া খবরের শেয়ার বন্ধে উদ্যোগী হলো টুইটার। করোনা আতঙ্কে একের পর এক ভুয়া, ভিত্তিহীন তথ্য ছড়িয়ে পড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ফলে বিভ্রান্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো অনেক আগেই ভুয়া খবর বন্ধে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। এবার ভুয়া খবরের ছড়িয়ে পড়া রুখতে নতুন ফিচার নিয়ে এলো টুইটার।

জানা গেছে, কোনও টুইট রিটুইট বা শেয়ার করার আগে এখন একটি নতুন পর্যায় অতিক্রম করতে হবে ইউজারদের। কোনও টুইট রিটুইট বা শেয়ার করার আগে ইউজারের কাছে জানতে চাওয়া হবে যে, ওই পোস্ট তিনি খুলে বা পড়ে দেখেছেন কিনা। এর উত্তর দেওয়ার পরই ওই পোস্ট রিটুইট করতে পারবেন ইউজার।

এই পদ্ধতির মাধ্যমে ইউজারের মাধ্যেই কোনও পোস্টের তথ্যগত সত্যতা প্রাথমিক ভাবে যাচাই করে নিতে চাইছে টুইটার। আপাতত শুধু অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্যই এই বিশেষ ফিচার পরীক্ষামূলক ভাবে চালু করা হয়েছে।

চলতি বছরের শুরু দিকে এমন উদ্যোগ নিয়ে আলোচনায় আসে ফেসবুক। সে সময় করোনা সম্পর্কে সঠিক তথ্যের প্রচার এবং ভুল তথ্য শেয়ার রোধ করতে উদ্যোগ নেয় ফেসবুক।

ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ জানান, মানুষকে সচেতন করার জন্য স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত প্রায় ২০০ কোটি ব্যবহারকারি করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত তথ্য দিচ্ছেন ফেসবুক ও ইন্সটাগ্রামে। একই ভাবে প্রায় ৩৫ কোটি ব্যবহারকরি করোনা সম্পর্কে জানতে ক্লিক করছেন ফেসবুকে। তাই ফেসবুক ও ইন্সটাগ্রামের মাধ্যমে ভুল তথ্য প্রচার কমানোর জন্য আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

তিনি জানান, মার্চের শুরু থেকেই ফেসবুক খবরের সত্যতা যাচাই করার জন্য (ফ্যাক্ট-চেকিং) ১২টিরও বেশি নতুন দেশে কাজ শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই ৬০০টিরও বেশি ফ্যাক্ট-চেকিং প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ৫০টিরও বেশি ভাষায় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত বিভিন্ন পোস্ট দেখছে ফেসবুক। যদি কোন পোস্টে ভুয়া অথবা ভুল তথ্য থাকে তাহলে সেগুলো সরিয়ে দেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ফেসবুকে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত ভুল তথ্য প্রকাশের জন্য ফ্যাক্ট-চেকারদের লেখা নিবন্ধগুলোতে ‘গেট দ্য ফ্যাক্টস’ নামে একটি ফিচার চালু রয়েছে।


আরও পড়ুন