জনকল্যাণ না থাকায় ২০ দলীয় জোটের বাজেট প্রত্যাখ্যান

জাতীয় সংসদে পাস হওয়া চলতি অর্থবছরের বাজেটে জনগণের কল্যাণে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট।

সোমবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বাজেট প্রত্যাখ্যান করার কথা জানান জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের কারণে স্বজনরা একে অন্যের সঙ্গে জরুরি কথা বলে। এ অবস্থায় মোবাইল ফোনের ওপর অতিরিক্ত প্রত্যাহার করা উচিত।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, দেশের জনগণ এখন কষ্টে আছে। এ অবস্থায় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের বিল আদায় না করে ডিসেম্বর পর্যন্ত স্থগিত রাখার জন্য জোটের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়।

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকার ব্যর্থ হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, নেপালের মতো দেশ তার নাগরিকদের কাছ থেকে করোনা টেস্টের ফি নিচ্ছে না। অথচ সরকার জনগণে কাছ থেকে টাকা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা দুঃখজনক; সরকারকে এই ফি প্রত্যাহার করতে হবে।

জোটের সমন্বয়ক বলেন, গণস্বাস্থ্যের উদ্ভাবিত কিট নিয়ে অহেতুক সময় ক্ষেপণ করছে। অথচ বিদেশ থেকে বেশি দামে নিম্নমানের কিট আনা হচ্ছে। এগুলো ক্ষমাহীন শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এদের শাস্তি হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, গার্মেন্টস শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধের জন্য সরকারের উচিত গার্মেন্টস মালিকদের সহায়তা দেওয়া। বিদেশে যারা কর্মহীন হয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে তাদের সহযোগিতা করতে হবে।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, প্রবাসীদের মধ্যে যারা ফেরত এসেছেন, তাদের মাসিক ১৫ হাজার টাকা করে দেওয়া উচিত।

গত রবিবার সকাল ১১টা থেকে বেলা সোয়া ২টা পর্যন্ত ২০-দলীয় জোটের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।


আরও পড়ুন