রাজধানী ও টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪

রাজধানীর খিলক্ষেত ও নাফ নদী সাঁতরিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৪ নিহত হয়েছেন।

রোববার দিবাগত মধ্যরাতে খিলক্ষেতের কুড়াতলি এলাকায় এবং কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নীলার ওয়াব্রাং গ্রামের এ দুটি ঘটনা ঘটে।

খিলক্ষেত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বোরহানউদ্দিন জানান, রাতে সড়কে পুলিশের ব্যারিকেড দেয়া ছিল। ছিনতাই চক্রের দুই সদস্য ছিনতাইয়ের প্রস্তুতিকালে ব্যারিকেডের সামনে পড়ে যায়। এ সময় পুলিশ তাদের থামতে বললে তারা পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় ডিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এতে দুই ছিনতাইকারী নিহত হন। তবে প্রাথমিকভাবে নিহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

এদিকে, নাফ নদী সাঁতরিয়ে ইয়াবা নিয়ে অনুপ্রবেশকালে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন।

রোববার দিবাগত রাতে কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নীলার ওয়াব্রাং গ্রামের নাফ নদের তীরে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, উখিয়া কুতুপালং ৫ নম্বর ক্যাম্পের জি ২/ই ব্লকের মোহাম্মদ শফির ছেলে মো. আলম ও বালুখালী ২ নম্বর ক্যাম্পের কে-৩ ব্লকের মো. এরশাদ আলীর ছেলে মো. ইয়াছিন।

টেকনাফ-২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফায়সাল হাসান খান জানান, টেকনাফের হ্নীলার ওয়াব্রাংয়ের নানীরবাড়ি অংশ দিয়ে মিয়ানমার থেকে মাদকের চালান আসার খবরে সেখানে অবস্থান নেন বিজিবির সদস্যরা। এ সময় কয়েকজন লোককে নাফ নদ সাঁতরে কিনারায় আসতে দেখে চ্যালেঞ্জ করলে তারা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। এতে বিজিবির ল্যান্স নায়েক মো. আব্দুল কুদ্দুস ও নায়েক মো. শাকের উদ্দিন আহত হন।

তিনি আরও জানান, বিজিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। উভয় পক্ষের মধ্যে ৪-৫ মিনিট গুলি বিনিময় হয়। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি চালিয়ে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা, একটি চায়না পিস্তল ও দুই রাউন্ড কার্তুজ এবং গুলিবিদ্ধ দু’জনকে উদ্ধার করা হয়।


আরও পড়ুন