‘ভগবান রাম নেপালি, ভারতীয় নয়’

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপাস্য দেবতা রামকে এবার নেপালি বলে দাবি করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি। রামের জন্মস্থান অযোধ্যায়, কাঠমান্ডুর কাছে অবস্থিত ছোট এ গ্রামটিকেও নিজের দেশের দাবি করেন তিনি।

গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর নিবাসে অনুষ্ঠিত একটি অনুষ্ঠানে এ দাবি করেন ওলি। তিনি বলেন, ‌‘ভগবান রামের জন্মস্থান অযোধ্যা আসলে ভারতে নয়। আসল অযোধ্যা থরি শহরে অবস্থিত, বিরগুঞ্জের পশ্চিমে যেটি। কিন্তু ভারত চিরকাল দাবি করেছে যে, অযোধ্যা তাদের দেশে।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী এমন সময়ে এই মন্তব্য করেছেন যখন ভারতের সঙ্গে তাদের কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হয়েছে।

কে পি শর্মা ওলি আরও বলেন, ‘বাল্মীকির আশ্রম নেপালে অবস্থিত। যেখানে রাজা দশরথ পুত্র লাভের আশায় যজ্ঞ করেন সেটা রিদি বলে একটি স্থানে। তখন তো কোনো যাতায়াতের ব্যবস্থা ছিল না, তাহলে ভারতের অযোধ্যা থেকে রাম জনকপুরে এলেন কী করে সীতা দেবীকে বিয়ে করতে? অযোধ্যায় বসে রাম জনকপুরের কথা জানতে পারলেন কী করে? তখন তো মোবাইল বা টেলিফোন কিছুই ছিল না, তাহলে খবর পেলেন কী করে তিনি? এর ফলে নেপালবাসীও বিভ্রান্ত হয়ে গিয়েছেন ও তারা মনে করেছেন যে সীতা দেবীর সঙ্গে ভারতের যুবরাজ রামের বিয়ে হয়েছিল। আসলে তা নয়।’

নেপালি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সংস্কৃতিগতভাবে আমরা কিছুটা নিপীড়িত হয়েছি। সত্য ঘটনাগুলোকে দখল করে নেওয়া হয়েছে। সত্যিকারের অযোধ্যা নেপালে, ভারতে নয়। ভগবান রামও নেপালি, ভারতীয় নন।’

সম্প্রতি সংবিধান সংশোধন করে উত্তরাখণ্ডের তিনটি এলাকা সম্প্রতি দেশের মানচিত্রে দেখিয়েছে নেপাল। এছাড়া ভারতের সব বেসরকারি খবরের চ্যানেলের সম্প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বিহারের নেপাল-ভারত সীমান্তে রাস্তা ও বাঁধের কাজে বাধা দিয়ে কাজও বন্ধ করে দিয়েছে নেপাল।


আরও পড়ুন