কিশোরগঞ্জে যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে নানা অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারীতার অভিযোগ

কিশোরগঞ্জে যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষণার্থীদের ভর্তিন ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে গত ২৫ জুন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক (প্রশিক্ষণ) মাসুদা আকন্দ স্বাক্ষরিত প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সারা দেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জে বিভিন্ন ট্রেডে যুবক ও যুব নারীদের আতœকর্মসংস্থানের নিমিত্ত দক্ষতাবৃদ্ধিমুলক প্রশিক্ষণ ও আতœকর্মী সৃজনের জন্য যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর বিভিন্ন প্রশিক্ষণে ভর্তির জন্য ৮ জুলাইয়ের মধ্যে স্ব-স্ব উপজেলায় দরখাস্ত আহবান করে।

সে অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার শতাধিক যুবক ও যুব নারী ‘গবাদী পশু হাঁস-মুরগী পালন, প্রাথমিক চিকিৎসা ও কৃষি বিষয়ক’ তিন মাস মেয়াদী প্রশিক্ষণ কোর্সে আবেদন করলে গত ৯ জুলাই তাদের মনোনয়নে স্বাক্ষাতের জন্য সদর উপজেলার যুব উন্নয়ন কার্যালয়ে হাজির হলে ১৬ জনকে চূড়ান্তভাবে বাঁচাই করে উত্তীর্ণ করে নির্বাচন বোর্ড।

উত্তীর্ণ প্রাথীদের তালিকা সদরের নোটিশ বোর্ডে সাটিয়ে দেওয়াসহ জেলা অফিসে তা প্রেরণ করা হয়। বুধবার (১৫ জুলাই) সদরের নির্বাচিত প্রশিক্ষণার্থীদের তালিকা হতে নির্বাচনী বোর্ড ৯জনের ভর্তি সম্পন্ন করে। এসময় স্বজন প্রীতি করে ১৬ জনের তালিকা বহির্ভূত আরও তিনজনসহ মোট ১২জনকে ভর্তি নেন। সদর কার্যালয়ের বাচাই করা নির্বাচিত ১৬জনের মধ্যে ভর্তিকৃত তিনজনকে না নিয়ে যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ডেপুটি কোঅর্ডিনেটর তানিয়া জামান সদরের তালিকা বহির্ভূত অতিরিক্ত ৩জনকে সম্পুর্ণ স্বজনপ্রীতি ও স্বেচ্ছাচারিতামুলকভাবে ভর্তি নেওয়ায় নির্বাচিত প্রশিক্ষণার্থীরা প্রতিবাদ করলে কোন আমলেই নেননি বলে জানা গেছে।

সদরের ১৬ জনের নির্বাচিত তালিকার ১২ নাম্বার প্রশিক্ষণার্থী জেলা সদরের বাসিন্দা এমদাদুল হক বলেন, সকাল থেকে যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ভর্তির জন্য অপেক্ষা করা হলে বিকেলে জানতে পারলাম আমার ১২সিরিয়ালে আরেকজন ভর্তি হয়েছেন যিনি কীনা আমাদের সাথে ৯ জুলাইয়ের নির্বাচিত স্বাক্ষাৎকারে অংশই নেননি।

ভর্তি বঞ্চিত প্রার্থীরা বলেন, সদর উপজেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের কার্যালয় থেকে ১৬ জনের মনোনীত তালিকা উপেক্ষা করে অন্যদেরকে ভর্তি করা ঠিক হয়নি। এভাবেই ভর্তি করা হবে তাহলে কেন আমাদের স্বাক্ষাতকার নেওয়া হলো।

এ বিষয়টি জানতে চাইলে কিশোরগঞ্জ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোঃ রোকন উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, কোন প্রশিক্ষণার্থীর ভর্তি করার বিষয়টি আমার দায়িত্ব নয় তা যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের দায়িত্বশীলদের কাজ।

যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ডেপুটি কো-অর্র্ডিনেটর তানিয়া জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সদরের ৫জনকে ভর্তি নেওয়ার কথা থাকলেও সার্বিক বিবেচনায় ৯জনকে ভর্তি নেওয়া হয়েছে। অপর তিনজনকে নিয়ম অনুযায়ীই ভর্তিসহ জেলায় মোট ৬০জনকে ভর্তি করা হয়েছে। এতে কোন অনিয়ম হয়নি বা তালিকা বহির্ভূত কাউকেও ভর্তি করা হয়নি।

কিশোরগঞ্জ সদন উপজেলার যুব উন্নয়ন অফিসার এ জেড শাহাদাৎ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার কাছে ৫জনের ভর্তি করার কোন চিঠি আসেনি। গত ৯ জুলাই অনুষ্ঠেয় শতাধিক যুবক ও যুব নারীদের প্রশিক্ষণের জন্য স্বাক্ষাতকারের মাধ্যমে ১৬জনকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। সদরের কাউকে ভর্তি করা হলে সে তালিকা অনুযায়ীই নেওয়া দরকার। তালিকা বহির্ভূত কেউ ভর্তি হয়েছে কীনা সেটা আমার জানা নেই।


আরও পড়ুন