তাইওয়ানকে ‘পরবর্তী হংকং’ বানাতে চায় চীন

হংকংয়ের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর চীন তাইওয়ানেও তেমন আধিপত্য বিস্তার করতে চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন দ্বীপ দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেপ উ। মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ পর্যায়ের এক প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকের সময় তিনি এমন মন্তব্য করেন বলে বার্তা সংস্থা এএফপি’র খবরে বলা হয়েছে।

১ জুলাই থেকেই হংকংয়ে নতুন জাতীয় নিরাপত্তা আইন চালু করে চীন সরকার। এই আইনের আওতায় হংকংয়ে বিচ্ছিন্নতাবাদ, কর্তৃপক্ষকে অবমাননা, সন্ত্রাসবাদ ও জাতীয় নিরাপত্তা বিপন্ন করতে বিদেশি বাহিনীর সঙ্গে আঁতাত নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ধরনের অপরাধের জন্য শাস্তির বিধান করা হয়েছে। এই আইনের বিরোধিতাকারী হংকংয়ের অনেক রাজনৈতিক কর্মী ও গণতন্ত্রকামীকে গ্রেপ্তার করেছে চীন কর্তৃপক্ষ।

হংকংয়ে ওপর বিতর্কিত এই নিরাপত্তা আইন আরোপে তাইওয়ান নিয়েও আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। কেননা বেইজিং বলছে, ২৩ লাখ জনগণের দেশ তাইওয়ানও তাদের ভূ-খণ্ড, প্রয়োজনে সেটাও নিজেদের অধিকারে নেবে তারা।

তাইপেতে যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি অ্যালেক্স অ্যাজারের সঙ্গে আলোচনাকালে তাইওয়ানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেপ উ জানিয়েছেন, চীনের কাছে স্বাধীনতা হারানোর প্রতিনিয়ত ভয়ের মধ্যে বাস করছেন তারা।

“আমাদের দৈনন্দিন জীবন প্রতিনিয়তই কঠিন হয়ে যাচ্ছে; কেননা, তাইওয়ানের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করার জন্য প্রতিনিয়তই চাপ দিয়ে আসছে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, তাইওয়ান পরবর্তী হংকং হতে চলছে।”

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অ্যাজার তিন দিনের সফরে আছেন তাইপেতে। তার এই সফরকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে বিশ্ব। ১৯৭৯ সালের পর এই প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তা তাইওয়ানে সফরে আসলেন।


আরও পড়ুন