শ্রীপুরে চিকিৎসা দেয়ার বাহানায় রোগীকে ধর্ষণ!

গাজীপুরের শ্রীপুরে এক রোগীকে (২৫) ধর্ষণের অভিযোগে মঙ্গলবার বিকেলে মো. নুরুল ইসলাম শেখ (৪৭) নামের এক চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় গত রোববার ভিকটিম ওই নারী বাদী হয়ে শ্রীপুর থানায় গ্রেপ্তার চিকিৎসক ও তার এক সহযোগীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

গ্রেপ্তার নুরুল ইসলাম গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর সেনানিবাস সংলগ্ন বাংলাদেশ নরওয়ে ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চিকিৎসক। তিনি গাজীপুর সদর উপজেলার জয়দেবপুর থানার জানাকুড় গ্রামের আব্দুর রহমান শেখের ছেলে।

ভিকটিমের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলায়। তিনি শ্রীপুরের ধলাদিয়া এলাকায় ভাড়া থেকে স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন।

মামলার বরাত দিয়ে শ্রীপুর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান, জ্বর সর্দি নিয়ে গত ২০ সেপ্টেম্বর ওই পোশাক কর্মী নুরুল ইসলাম শেখের বাংলাদেশ নরওয়ে ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান। সেদিন সেখানে চিকিৎসকের পরামর্শ মত রক্ত ও প্রস্রাব পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়ে তিনি বাসায় চলে যান।

পরদিন ওই নারীকে জানানো হয়, আগের দেয়া নমুনা নষ্ট হয়ে গেছে তাই আবারও তাকে নমুনা দিতে হবে। পরে ২১ সেপ্টেম্বর দুপুরে ওই হাসপাতালে রক্ত দিতে যাবেন জানিয়ে রওনা হন ওই নারী। বাড়ি থেকে বের হয়েই তিনি ধলাদিয়া এলাকায় রাজেন্দ্রপুর-কাপাসিয়া সড়কের পাশে নূরুল ইসলাম শেখসহ তার ২/৩ জন সহযোগীকে গাড়ি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখতে পান। তাকে দেখে তারা ওই হাসপাতালে যাবেন জানিয়ে নুরুল হক ভিক্টিমকে তার গাড়িতে উঠার প্রস্তাব দেন।

সরল বিশ্বাসে গাড়িতে উঠলে তারা তাকে হাসপাতালে না নিয়ে স্থানীয় ধলাদিয়া কলেজের পাশে নুরুল ইসলামের বাংলোতে নিয়ে যান। পরে বাংলোর একটি কক্ষে নিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে ওই নারীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। পরে ঘটনা প্রকাশ করলে ভিক্টিমকে খুন জখমের হুমকি দিয়ে ছেড়ে দেয়।

এ ঘটনায় ওই নারী তার স্বজনদের আলোচনার পর রোববার শ্রীপুর থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে মঙ্গলবার বিকেলে তাকে জয়দেবপুর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার সহযোগীকেও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


আরও পড়ুন