কুলিয়ারচরে অটোচালকরা আতংকে! ৬ মাসে ১১ জনের মরদেহ উদ্ধার

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে একদিনে অজ্ঞাত ১ ব্যক্তির সম্পুর্ণ গলিত ও ১ শিশুর মৃতদেহসহ ৬ মাসের ব্যবধানে ১১ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর ) বিকালে উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের ভিটিগাঁও পাকা রাস্তার পাশে জলাশয় থেকে অজ্ঞাত নামা একজনের সম্পূর্ণ গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের মধ্য সালুয়া গ্রামের মনির মিয়া দাবী করেন, ওই গলিত লাশ তার ছেলে অটোচালক মো. হাকিম মিয়ার। হাকিম মিয়া (১৬) গত দুই সপ্তাহ আগে অটোরিকশাসহ নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় হাকিম মিয়ার বাবা বাদী হয়ে কুলিয়ারচর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছিলেন। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত হাকিমকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

থানার এস আই মো. নয়ন মিয়া জানান, সংবাদ পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টার পর লাশটি জলাশয়ের কচুরীপানার নীচ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। পানিতে পচে সম্পূর্ণ গলে যাওয়ায় লাশটি কিশোর নাকি যুবক বুঝা যায়নি। তবে স্থানীয় মধ্য সালোয়া গ্রামের মনির মিয়া দাবী করছেন এটা তার ছেলে অটোচালক মো. হাকিম মিয়ার লাশ। তবে ডিএনএ টেষ্ট ছাড়া লাশটি সনাক্ত করা সম্ভব নয়।

অপরদিকে একই দিনের একই সময়ে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের নলবাইদ পূর্বপাড়া থেকে তামিম (৭) নামে এক শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তামিম নলবাইদ পূর্বপাড়া গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে। তামিমকে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বুূধবার সকাল থেকে খুজা খুঁজি করে কোথাও না পেয়ে মাইকিং করে স্বজনরা। পরদিন বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) বিকালে তামিমের লাশ পার্শ্ববর্তী নদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসী।

এব্যাপারে থানার এস আই মো. এমদাদুল হক জানান, শিশুটি কি ভাবে মারা গেছে তা জানা যায়নি। তবে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। পরিবারের পক্ষ থেকে লাশটি দাফন করা হয়েছে ।

এর আগে গত ২৭ সেপ্টেম্বর রোববার সকাল ১০ টার দিকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলার বড় ছয়সূতী মধ্যপাড়া গ্রামে সহপার্ঠি রুহুল আমিন ওরুফে রুহেল এর হাতে ইমন (১৬) নামে এক কিশোর খুন হয়। নিহত ইমন ওই গ্রামের জুতা ব্যবসায়ী ইব্রাহীম মিয়ার ছেলে।

এছাড়া জানা যায়, এর আগে গত ২৬ সেপ্টেম্বর শনিবার সন্ধ্যায় ৭০ বছর বয়সী এক অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই বৃদ্ধ ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের কুলিয়ারচর দ্বাড়িয়াকান্দি ব্রিজ সংলগ্ন রাস্তার পাশে রক্তাক্ত অবস্থায় পরে থাকতে দেখে তাকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী কুলিয়ারচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতাল থেকে ভৈরব হাইওয়ে থানা পুলিশ তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করে।

এর আগে গত ২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুর দুই টার দিকে খাবার খেয়ে অটোরিকসা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হওয়ার একদিন পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর মো. সোহেল খন্দকার ওরুফ বদন (৩৫) নামে এক অটোরিকসা চালকের লাশ পার্শ্ববর্তী ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়ন থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত অটোরিকসা চালক সোহেল খন্দকার ওরুফে বদন উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ মাইজপাড়া গ্রামের মো. হান্নান খন্দকারের ছেলে।

এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ১১ টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ফরিদপুর ইউনিয়নের ফরিদপুর কাটাখালী সুইস গেট এলাকার উত্তর পাশে মজলিস খা’র বাড়ির পশ্চিম পাশে ব্রহ্মপুত্র নদের পাড় থেকে অজ্ঞাত এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এছাড়া পাওনা ৩০ টাকার জন্য সহপাঠীদের হাতে মো. হযরত আলী (২৮) নামে এক অটো চালক খুন হয়। গত ২৯ আগষ্ট শনিবার সকালে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ ওই নিহত অটো চালকের লাশ উদ্ধার করে। নিহত হযরত আলী কুলিয়ারচর পৌর এলাকার পূর্ব গাইলকাটা গ্রামের আক্কেল আলীর একমাত্র পুত্র।

এর আগে গত ৩ আগষ্ট সোমবার সকাল ৬ টার দিকে উপজেলার কান্দিগ্রাম পূর্বপাড়ায় সন্তানের বৃত্তির টাকা দিয়ে জুয়া খেলতে স্বামী স্বপন মিয়া (৩৮) কে বাঁধা দেওয়ায় মোছা. রেখা আক্তার (৩৩) নামে এক গৃহবধূ স্বামী কর্তৃক খুন হওয়ার অভিযোগে জুয়ারি স্বামীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

গত ১০ জুলাই শুক্রবার উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নের হাপানিয়া গ্রামের কেরামত আলীর স্ত্রী স্মৃতি আক্তার নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরুদ্ধ করে খুন করার অভিযোগে স্বামীকে আটক করেছে পুলিশ। মৃত গৃহবধূ স্মৃতি আক্তারকে চিকিৎসা করানোর উযুহাতে পার্শ্ববর্তী নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে আটক হয় গৃহবধুর স্বামী মো. কেরামত আলী।

এর আগে গত ১১ মে সোমবার সকাল ১০ টার দিকে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের নলবাইদ মধ্যপাড়া গ্রামের দেলোয়ার মেম্বারের বাড়ির পশ্চিম পাশের ব্রহ্মপুত্র নদের পাড় থেকে এক নবজাতকের ক্ষত বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ ।

এর আগে গত ২৮ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় একই ইউনিয়নের কাটাখালী এলাকায় সুইস গেট সংলগ্ন ব্রহ্মপুত্র নদের পাড় ফরিদপুর গ্রামের মৃত আলী আকবর মোল্লার পুত্র মো. আহসান হাবিব ওরফে বাদল মাস্টারের নির্জন জঙ্গল থেকে আরও একটি নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ।

দু’একটি মামলার কারণ ও আসামীদের নাম ঠিকানা জানা থাকলেও অন্যান্য কোন মামলার ক্লু-বের করতে না পারায় এবং হত্যাকারীদের নাম ঠিকানা সনাক্তসহ গ্রেফতার করতে না পারায় জনমনে আতংক বিরাজ করছে। বিশেষ করে অটোচালকরা আতংকে গাড়ি নিয়ে বের হতে হচ্ছে।


আরও পড়ুন