রাঙামাটিতে সেনাবাহিনীর সাথে গোলাগুলিতে দুই সন্ত্রাসী নিহত

রাঙামাটির নানিয়াচরে সেনাবাহিনীর সাথে গোলাগুলিতে ২ জন ইউপিডিএফ সদস্য নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত এক সেনাসদস্যকে হেলিকপ্টারযোগে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকাল ৫ টা দিকে নানিয়াচর উপজেলার বুড়িঘাট রউফ টিলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দুই ইউপিডিএফ সদস্যের একজনের নাম রকেট চাকমা বলে জানা গেলেও অপরজনের পরিচয় জানা যায়নি।

এ ঘটনায় শাহাবউদ্দিন নামে একজন সেনাসদস্য আহত হয়েছেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়ছে।

নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্র ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্র জানায়, ইউপিডিএফ মূল দলের পরিচয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় কাপ্তাই হ্রদের জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করে আসছিল। এ তথ্য পেয়ে রাঙামাটি সদর জোনের সেনাবাহিনী একাধিক দলে বিভক্ত হয়ে মঙ্গলবার বিকালে মাছ ব্যবসায়ী সেজে বুড়িঘাটে রউফ টিলা এলাকায় ইউপিডিএফকে চাঁদা দিতে যায়।

সেখানে গিয়ে ইউপিডিএফ চাঁদা কালেক্টর একাধিকবার জায়গা পরিবর্তন করে। পরে চাঁদা কালেক্টর একটি বার্জিম বোট নিয়ে চাঁদা নিতে আসলে সেনাবাহিনীর এক সদস্য কালেক্টরকে ঝাপটে ধরে ফেলেন। এমন সময় কালেক্টর চিৎকার করলে পাহাড় থেকে ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীরা সেনাদের লক্ষ্য করে ব্রাশ ফায়ার করা শুরু করে। এতে সেনাবাহিনীও পাল্টা গুলি ছোড়ে।

এ সময় উভয় পক্ষের প্রায় ঘন্টাব্যাপী বন্দুকযুদ্ধ হয়। পরে সন্ত্রাসীরা চলে গেলে ঘটনাস্থলে দু’জনের লাশ ও একটি একে-২২ রাইফেল (এসএমজি) পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের লাশ ও অস্ত্র উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনাস্থল ঘিরে রেখে সেনাবাহিনী তল্লাশি চালাচ্ছে।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর), এ ঘটনায় ইউপিডিএফের (প্রসিত গ্রুপ) গুলিতে সেনাটহলে থাকা সৈনিক শাহাবুদ্দিন বাম কাঁধে গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রামে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একে-২২ রাইফেল (এসএমজি) উদ্ধার করা হয়েছে।

রাঙামাটি পুলিশ সুপার আলমগীর কবির জানান, ঘটনা শুনেছি। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ফিরলে বিস্তারিত জানা যাবে।


আরও পড়ুন