৭ দিন দেখা যাবে না কাঞ্চনজঙ্ঘা

ভোরের আলো ফুটতেই তা গিয়ে পড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়ায়। চারপাশে তখনও আবছা অন্ধকার এর মধ্যেও চকচক করে পর্বত চূড়াটি। সূর্যের আলোর সঙ্গে কখনো শুভ্র, কখনো গোলাপি, কখনো বা লাল রং নিয়ে হাজির হয় বরফে আচ্ছাদিত কাঞ্চনজঙ্ঘা। সেই সঙ্গে ছায়ার মতো দেখা মিলে দার্জিলিংয়ের পাহাড়ি অঞ্চলেরও।

পঞ্চগড়ে হালকা এই শীতের সময়ই কাঞ্চনজঙ্ঘার অপরূপ দৃশ্য দর্শনের সবচেয়ে ভালো সময়। এখন অনেক পর্যটকও পঞ্চগড়ে ছুটে আসছেন কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে। গত অক্টোবর মাস জুড়েই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বত্র চর্চায় ছিল কাঞ্চনজঙ্ঘা। তবে শীতের পদধ্বনী পেয়ে ক্রমেই দৃষ্টিসীমার আড়ালে চলে যাচ্ছে মোহনীয় এই শৃঙ্গ।

কুয়াশার কারণে আগামী সাতদিন পঞ্চগড় থেকে হিমালয়ের দ্বিতীয় উচ্চতম ও পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বত শৃঙ্গ কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখা যাবে না বলে জানিয়েছে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ অফিস।

পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত (২৯, ৩০ ও ৩১ অক্টোবর) টানা ৩ দিন আকাশ পরিষ্কার থাকায় কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখা গেলেও রোববার থেকে তা আর দেখা যাচ্ছে না।

এদিকে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় শুক্রবার সকাল ৯টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন বৃহস্পতিবার তেঁতুলিয়ায় মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হলেও আজ তা ২ ডিগ্রি বেড়েছে।

পঞ্চগড়ে তাপমাত্রা কমতে থাকায় বাড়ছে শীত। উত্তরের হিমালয় থেকে বয়ে আসা হিমেল হাওয়ার সাথে কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে জেলার বিভিন্ন এলাকা।


আরও পড়ুন