কিশোরগঞ্জ পৌর নির্বাচন : এক কেন্দ্রে ঝুলছে দুই মিয়ার ভাগ্য!

কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ৪৮৪ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. পারভেজ মিয়া ওরফে মাহমুদ পারভেজ।

শনিবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা নির্বাচন ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম।

বেসরকারিভাবে পাওয়া ফলাফলে ২৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৭টি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. পারভেজ মিয়া (নৌকা) পেয়েছেন ২০ হাজার ৯২২ ভোট। অন্যদিকে বিএনপি প্রার্থী জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইসরাইল মিঞা (ধানের শীষ) পেয়েছেন ২০ হাজার ৪৩৮ ভোট। স্থগিত ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজের পূর্ব তিনতলা ভবন কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১৮৫২ জন। ফলে নির্বাচনে জয়-পরাজয় ওই কেন্দ্রের ফলাফলের ওপর নির্ভর করছে।

মেয়র পদে অন্য প্রার্থীদের মধ্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম (হাতপাখা) এক হাজার ৭২৩ ভোট, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানো স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শফিকুল গনি ঢালী লিমন (মোবাইল ফোন) ৩৬৪ ভোট এবং ন্যাশনাল পিপিলস্ পার্টি প্রার্থী মো. স্বপন মিয়া (আম) ১৫১ ভোট পেয়েছেন।

এর আগে স্বতঃস্ফূর্ত ও ব্যাপক ভোটার উপস্থিতির মধ্য দিয়ে শনিবার (১৬ জানুয়ারি) কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। উৎসবমুখর পরিবেশে সকাল ৮টায় ভোট শুরু হওয়ার পর থেকে বিকাল ৪টায় ভোট গ্রহণ শেষ পর্যন্ত দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

আরও পড়ুন : কুলিয়ারচরে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ভোট বর্জন

তবে পৌরসভার ২৮টি কেন্দ্রের মধ্যে শহরের ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজের পূর্ব তিনতলা ভবন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া এবং একপর্যায়ে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় কেন্দ্রটির ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম।

এদিকে নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে প্রতিটি কেন্দ্রেই বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খখলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়োজিত থাকতে দেখা যায়।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম এবং পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ কিশোরগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এসময় তাঁরা ভোটার ও সংশ্লিষ্টদের সাথে নির্বাচনের পরিবেশসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।

দ্বিতীয় ধাপের কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ২৮টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ৭১ হাজার ৮৪ জন। নির্বাচনে মেয়র পদে মোট ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শফিকুল গনি ঢালী লিমন (মোবাইল ফোন) নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।


আরও পড়ুন