অটোর চাকায় ওড়নার প্যাঁচ লেগে ছাত্রীর মৃত্যু

নামাজরত অবস্থায় সেজদায় পড়ে চাচীর মৃত্যুর ঘটনায় মৃত চাচীকে দেখতে এসে বাসায় ফেরার পথে গলায় থাকা ওড়না অটোরিকশার চাকায় প্যাঁচ লেগে ভাতিজী সেজুতি আক্তারের (১৫) মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ভালুকা উপজেলার সাতেঙ্গা গ্রামে।
নিহত সেজুতি ওই গ্রামের রুহুল আমিন মাস্টারের একমাত্র মেয়ে। সে ভালুকা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী।
স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে, বুধবার (৫ মে) রাতে রুহুল আমিন মাস্টারের চাচাতো ভাই বাদল মিয়ার স্ত্রী নাছিমা বেগম (৪৫) নামাজরত অবস্থায় সেজদায় পড়ে স্টোকে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। বৃহস্পতিবার সকালে নিহত চাচীকে দেখতে মা কে নিয়ে সেজুতি গ্রামের বাড়ি সাতেঙ্গা গ্রামে যায়। বেলা ১১টায় জানাজা শেষে ব্যাটারী চালিত অটো রিকশায় হাসপাতাল এলাকার বাসায় ফেরার সময় পথিমধ্যে গলায় থাকা ওড়না অটোর চাকায় প্যাঁচ লেগে ঘটনাস্থলেই সেজুতি মারা যায়।
এ ঘটনায় নিহতের পরিবার ও এলাকায় শোকের ছায়া নামে। মায়ের কান্নায় আকাশ বাতাস চারদিক ভারী হয়ে ওঠে।
বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় সাতেঙ্গা মোস্তফা মতিন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

আরও পড়ুন