দূর পরবাস - December 17, 2019

মিশরে বিজয় দিবস পালিত

আফছার হোসাইন (কায়রো থেকে), মিশরের রাজধানী কায়রোর বাংলাদেশ দুতাবাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কোরআন তিলাওয়াত, নীরবতা পালন, দোয়া, আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস ।

গতকাল ১৬ই ডিসেম্বর সকাল ৯:০০ ঘটিকায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে বিজয় দিবসের কর্মসূচী শুরু হয়। দূতাবাসের সকল সদস্যের উপস্থিতিতে দূতাবাস প্রাঙ্গনে চার্জ দ্যা এ্যাফেয়ার্স জনাব এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এদিন সন্ধ্যা ৫:৩০ ঘটিকায় দূতাবাস মিলনায়তনে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মোহাম্মদ ফেরদৌস এর সঞ্চালনায় বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে ঢাকা থেকে প্রেরিত মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণীসমূহ আলোচনা সভায় উপস্থিত অতিথিদের সামনে পাঠ করেন যথাক্রমে বাংলাদেশ দুতাবাসের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদুত জনাব এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল ও শ্রম সচিব জুবাইদা মান্নান।

ঐতিহাসিক আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয় সহ মিশরে অধ্যায়নরত বাংলাদেশী ছাত্র, ব্যবসায়ী, চিকিৎসক এবং কায়রোর বাইর থেকে আসা বিপুল পরিমান প্রবাসী বাংলাদেশীরা বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত অতিথিদের মধ্যে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ছাত্র, ব্যবসায়ী ও পোষাকশিল্পে কর্মরত পেশাজীবীদের প্রতিনিধিরা আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বীর মুক্তিযুদ্ধাদের আত্মত্যাগের প্রতি সম্মান প্রদর্শণ পূর্বক মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেন।

সভাপতির সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দূতাবাসের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত জনাব এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহিদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি মিশরে প্রবাসী বাংলাদেশীদেরকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। তিনি উল্লেখ করেন যে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদূর প্রসারী নেতৃত্বে সরকার “ভিশন-২০২১”, “ভিশন-২০৪১” এবং “ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০” গ্রহণ করেছে এবং বাংলাদেশ দৃয় প্রত্যয়ে তার অভীষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি তাঁর বক্তৃতায় বলেন যে ২০২০ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও ২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপিত হবে যা বাঙ্গালী জাতির ইতিহাসে অনন্য মাইলফলক। কায়রোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসও জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান দুটো যথাযোগ্য মর্যাদায় আয়োজন করবে এবং মিশর প্রবাসী বাংলাদেশীদের উক্ত কর্মসূচীগুলোতে স্বতঃস্ফুর্ত অংশ গ্রহণের আহ্বান জানান। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সবাইকে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান জানান।

আলোচনা সভার পর একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়, যেখানে কবিতা আবৃত্তি, দেশের গান ও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। এ সময় মিশরে প্রবাসী বাংলাদেশী শিশুরা হাতে জাতীয় পতাকা নিয়ে নাচতে দেখা যায়। যা উপস্থিত দর্শকদের মুগ্ধ করে। অনুষ্ঠান শেষে বাংলাদেশি খাবার দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়।


আরও পড়ুন