ইটনা - March 28, 2020

ইটনায় সুরক্ষা পোশাক ছাড়াই করোনা সচেতনতা ও প্রতিরোধে কাজ করছে ওরা ১১ জন

কিশোরগঞ্জের হাওড় উপজেলা ইটনায় মহামারী করোনা প্রতিরোধ ও সচেতনতায় দিনব্যাপী কাজ করছে ওরা ১১ জন। তাদের গায়ে নেই কোন (পিপিই) ব্যাক্তিগত সুরক্ষা পোশাক।

গত ২৬ মার্চের পর থেকে ঐ সেচ্ছাসেবী সংগঠনটির সদস্যরা প্রতিদিন সকাল থেকে উপজেলার জিরো পয়েন্টে অবস্থান করে উপজেলা শহরে প্রবেশকারী প্রতিটি যানবাহনে জীবাণু নাশক স্প্রে করছে। হাট বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাকে মাস্ক ব্যবহারে উৎসাহ, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ বিষয়ে সচেতনতা মুলক পরামর্শ, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলাচল করা, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ক্রয় করা, সরকারী আইন ও আইইডিসাআররে স্বাস্থ্য বিধি মানার পরামর্শ দিচ্ছেন। এতে সাধারন মানুষের মধ্যে ব্যাপক সচেতনতা লক্ষ করা যায়।

এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান বলেন, ওরা ১১ জন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের তরুন দের কার্যক্রমটি আমার খুব ভাল লেগেছে এতে সমাজের সাধারন মানুষ উপক্রিত হবে। তাদের মত উপজেলার যুব সমাজকে দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে নিজ উদ্যেগে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সংগঠনে সক্রিয় সদস্য অমৃত আচার্য্য আবির বলেন, আমরা একটা অরাজনৈতিক সংগঠন, আমরা ১১ জন বন্ধু মিলে সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করি, এ সংগঠনের মুল লক্ষ্য হলো সমাজের অসংগতি তুলে ধরা, বাল্য বিবাহ, ইভটিজিং প্রতিরোধ, প্রকৃতিক দুর্যোগসহ ও দেশের যেকোন দুর্যোগে সকলের পাশে থেকে সাধ্য অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগীতা করা। আবির আরো জানান এ মুহুর্তে আমাদের যদি সরকারী ভাবে (পিপিই) ব্যাক্তিগত সুরক্ষা পোশাক দেওয়া হয় তাহলে কাজটি আরও নিরাপদ ভাবে করতে পারবো।

সদস্য সোলাইমান মিয়া বলেন, আমাদের ফোন নাম্বারে সদর ইউনিয়নের কেউ যদি বাড়িতে বসে থেকে নিত্যপ্রয়োজনী দ্রব্য সরবরাহ করতে বলে তাহলে আমরা তাদের বাড়িতে দ্রব্য পৌছেঁ দিচ্ছি। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাফিসা আক্তার বলেন, এই মুহুর্তে যেখানে মানুষ জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহির হচ্ছেনা সেখানে ওরা ১১ জন দিনব্যাপী মানুষের সেবা করার জন্য হাট-বাজার, রাস্তায় থেকে জনসাধারণকে সচেতন করছে তা সত্যিই প্রশংসনিয় উদ্যোগ।


আরও পড়ুন