মিঠামইনে আ. লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার কেওয়ারজোড় ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সমাজসেবক মো. মুনসুর আলী (৬৫) কে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

 

রোববার (১ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কেওয়ারজোড় ইউনিয়নের হেমন্তগঞ্জ বাজার সংলগ্ন মসজিদের সামনের রাস্তায় তিনি এই নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হন।

 

নিহত মো. মুনসুর আলী হেমন্তগঞ্জ গ্রামের মৃত ইছব আলীর ছেলে।

 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, জমির সীমানা ও এলাকায় আধিপত্য নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মুনসুর আলীর লোকজনের সাথে পার্শ্ববর্তী কুড়ারকান্দি কাওয়ালিবাড়ির নজরুল ইসলামের লোকজনের বিরোধ চলে আসছিল। তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে গত বছর মারামারি ঘটনাও ঘটে। এনিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এ বছরও হেমন্তগঞ্জ গ্রামের এক স্কুলছাত্রকে মারপিট করে প্রতিপক্ষ কুড়ারকান্দি কাওয়ালিবাড়ির লোকজন। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছিল। এরকম পরিস্থিতিতে রোববার (১ নভেম্বর) হেমন্তগঞ্জ বাজার সংলগ্ন মসজিদে ফজরের নামাজ পড়তে যান মো. মুনসুর আলী। নামাজ শেষে মাঠে যাওয়ার জন্য রাস্তায় নামতেই সকাল সাড়ে ৬টার দিকে তার ওপর হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। হামলাকারীরা উপুর্যুপরি কুপিয়ে মুনসুর আলীকে গুরুতর আহত করে। এ সময় রক্তাক্ত মুনসুর আলী রাস্তায় লুটিয়ে পড়লে তাকে মৃত ভেবে হামলাকারীরা চলে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

 

এদিকে খবর পেয়ে অষ্টগ্রাম সার্কেলের এএসপি এসএম আজিজুল হক, মিঠামইন থানার ওসি মো. জাকির রব্বানী, পরিদর্শক (তদন্ত) তাইজ উদ্দিন আহমেদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

 

ওসি মো. জাকির রব্বানী জানান, নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে।


আরও পড়ুন